সন্ধ্যা ৭:০৯, সোমবার, ১০ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ছাত্রলীগ করায় ছেলেকে ত্যাজ্য ঘোষণা

আজকের সারাদেশ প্রতিবেদন:

পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় ছাত্রলীগের রাজনীতিতে জড়ানেয় আলিফ মাহমুদ রুদ্র (২২) নামের এক ছাত্রলীগ নেতাকে ত্যাজ্য ঘোষণা করেছেন তার বাবা রাসেল মোল্লা।

মঙ্গলবার (২৩ মে) বিকেলে নিজের ফেসবুক একাউন্টে ছেলের ছবিসহ একটি স্ট্যাটাস দিয়ে এই ঘোষণা দেন তিনি।

আলিফ মাহমুদ রুদ্র সম্প্রতি স্থানীয় ইসমাইল তালুকদার টেকনিক্যাল কলেজ থেকে সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে ডিপ্লোমা পাশ করেছেন। দুই ভাই-বোনের মধ্যে বড় রুদ্র কালাপাড়া পৌরসভার ৬ নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগের বর্তমান সভাপতি ও পৌরসভা ছাত্রলীগের সভাপতি পদ প্রত্যাশী। তার বাবা রাসেল মোল্লা বরিশালের একটি গণমাধ্যমের কালাপাড়া প্রতিনিধি ও কলাপাড়া উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক। 

ওই ফেসবুক স্ট্যাটাসে রাসেল মোল্লা লিখেন, ‘আমার ছেলে আলিফ মাহমুদ রুদ্র, সে আমার সিদ্ধান্ত কে উপেক্ষা করে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের রাজনীতিতে জড়িত হওয়ার কারণে তাকে আমার পরিবার থেকে ত্যাজ্যপুত্র ঘোষণা করলাম। আজ থেকে আমার পরিবারের কোন সদস্যদের সাথে তার কোন সম্পর্ক নেই। আমি নিজেও গত দুই বছর ধরে কোন রাজনৈতিক দলের সাথে জড়িত নাই, আগামীতে কোন দলের সাথে জড়াব না।’

নিজের একমাত্র ছেলেকে ত্যাজ্যের বিষয়ে রাসেল মোল্লা আজকের সারাদেশকে বলেন, ‘আমি আগে একটি রাজনৈতিক দলের সাথে জড়িত ছিলাম, দীর্ঘদিন রাজনীতি করেও কিছু পাইনি। রাজনীতিতে শুধু টাকার খেলা, সেখানে যোগ্যতার কোনো মূল্যায়ন হয় না। তাই তাকে রাজনীতিতে না জড়িয়ে ভালো করে পড়াশোনা করতে বলেছিলাম, কিন্তু সে তবু রাজনীতি নিয়ে আছে। তার পছন্দের গুরুত্ব আছে, কিন্তু পারিবারিক সিদ্ধান্ত তো মানতে হবে। তাকে ত্যাজ্য করেছি, এখন সব ছেড়ে আসলেও আর হবে না।’

এদিকে গত তিনদিন আগেই বাসা থেকে বের হয়ে গেছেন আলিফ মাহমুদ রুদ্র। বর্তমানে কালাপাড়া পৌরসভা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আসাদুজ্জামান শুভর আশ্রয়ে রয়েছেন তিনি। ত্যাজ্য ঘোষণার বিষয়ে আলিফ মাহমুদ রুদ্র আজকের সারাদেশকে বলেন, ‘আমি সপ্তম শ্রেণিতে পড়ার সময় থেকে বঙ্গবন্ধু ও দেশরত্ন শেখ হাসিনার ব্যাপারে আগ্রহী হয়ে উঠি। তখন থেকেই সক্রিয়ভাবে ছাত্ররাজনীতিতে জড়াই। বঙ্গবন্ধুর আদর্শ আমার ভালো লাগে, আমি এটা ধারণ করেই বাঁচতে চাই। বাবা রাজনীতি বাদ দিয়ে পড়াশোনায় মনযোগ দেওয়ার কথা বলতেন সবসময়। রাজনীতি করলেও আমি পড়াশোনাও চালিয়ে যাচ্ছি। ভালো ছাত্র না হলে তো ছাত্রলীগ করা যাবে না। গত তিনদিন ধরে ওনার সাথে আমার কোনো কথা হয়নি।’

ত্যাজ্য ঘোষণার বিষয়টি পারিবারিক হলেও আলিফ মাহমুদ রুদ্র ছাত্রলীগের জন্য নিবেদিতপ্রাণ হলে তাকে অবশ্যই মূল্যায়ন করা হবে বলে জানান পটুয়াখালী জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মো. সাইফুল ইসলাম। তিনি বলেন, ‘সারাদেশে ছাত্রলীগের কর্মীদের নিয়ে তাদের বাবা-মায়েরা গর্ব করেন। তবু রুদ্রের ক্ষেত্রে বিষয়টা ভিন্ন। আমরা অবশ্যই তার পাশে থাকব।’

আজকের সারাদেশ/২৩ মে/ এএইচ/এসএম

সর্বশেষ সংবাদ