রাত ১২:০৬, বৃহস্পতিবার, ৯ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

দুবাই বসে বাংলাদেশে কোটি টাকার অনলাইন প্রতারণা

আজকের সারাদেশ প্রতিবেদন:

প্রথমেই তাঁরা ইংরেজি পড়তে ও বুঝতে পারেন এমন ব্যক্তিদের টার্গেট করতেন। সংগ্রহ করতেন তাদের মুঠোফোন নম্বর। তারপর ওই মানুষদের সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে খুদে বার্তা পাঠাতেন এই বলে, ‘আপনি চাকরির পাশাপাশি পার্টটাইম কাজ করে বাড়তি আয় করতে পারবেন।’

তাঁদের সেই ফাঁদে পা দিলেই শুরু হতো প্রতারণা। আউটসোর্সিংয়ের টাকা জমা হওয়ার কথা বলে ওই মানুষদের খুলে দেয়া হতো একটা অ্যাকাউন্টও। কাজের বিনিময়ে টাকা জমা হওয়ার ভুয়া মেসেজও পাঠাতেন ওই অ্যাকাউন্টে। সেই টাকা তুলতে চাইলেই নানা অজুহাত দেখিয়ে হাতিয়ে নিতেন টাকা। আর সেই টাকা চলে যেত দুবাইয়ে চক্রের প্রধানের হাতে।

এভাবে বহু মানুষের কাছ থেকে কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়ার এই চক্রটিকে সনাক্ত করতে পেরেছে চট্টগ্রাম নগর গোয়েন্দা পুলিশের একটি দল। মানুষের কাছ থেকে হাতিয়ে নেয়া টাকাসহ ওই চক্রের তিনজনকে বৃহস্পতিবার গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

গ্রেপ্তার তিনজন হলেন, আল ফয়সাল, আরেফা বেগম এবং নিজাম উদ্দিন। তবে চক্রের প্রধান সম্প্রাট থাকেন দুবাইয়ে। গ্রেপ্তার ব্যক্তিদের কাছ থেকে আত্মসাৎ করা এক লাখ পঁচাশি হাজার ৮০০ টাকা ও ঘটনায় ব্যবহৃত ৪ টি মোবাইল জব্দ করা হয়েছে।

পুলিশ জানায়, জিজ্ঞাসাবাদে আল ফয়সাল স্বীকার করেন তাঁর ছোট ভাই সম্রাট দুবাই থেকে আউটসোসিংয়ের নামে টাকা আত্মসাতের উদ্দেশ্যে একটি ওয়েবসাইট খোলেন। দেশে বসে সে ও তার মা আরেফা বেগম কয়েকজনকে নিয়ে প্রতারণার কাজটি করে যাচ্ছিলেন।

কয়েকজন ভুক্তভোগী জানান, প্রথমে তাদের মোবাইলের হোয়াটসএ্যাপে এসএমএস আসে যে, আপনি চাকরির পাশাপাশি পার্টটাইম কাজ করে বাড়তি আয় করতে পারবেন। পরবর্তীতে তাঁরা সরল বিশ্বাসে চাকরির পাশাপাশি বাড়তি আয়ের কথা চিন্তা করে তাদের কথা মত অনলাইন আউটসোর্সিং কাজে যোগ দেন। পরবর্তীতে প্রতারকেরা টেলিগ্রামের মাধ্যমে ভুক্তভোগীদের ম্যাসেজ আদান প্রদান করতে থাকে। অনলাইন প্রতারক ভিকটিমদের বলেন, আপনি তাদের পাঠানো ওয়েবসাইটে একটি একাউন্ট খোলেন এবং তাদের দেয়া কাজগুলো করলে ভিকটিম পেমেন্ট পাবে। পেমেন্ট উত্তোলনের পূর্ব পর্যন্ত ভিকটিমের একাউন্টে টাকা জমা হতে থাকবে। এভাবে কাজ করতে করতে অল্পতেই ভিকটিমের উক্ত ওয়েব সাইটের অ্যাকাউন্টে ১-২ লাখ টাকা জমা হলে অনলাইন প্রতারক ভিকটিমদের জানান যে, আপনি অনলাইনে কাজ করতে গিয়ে কিছু ভুল করেছেন যার কারণে আপনার কিছু পয়েন্ট কাটা গেছে। এ কারণে আপনার অ্যাকাউন্টের জামা হওয়া টাকা তুলতে হলে তাদের অগ্রিম-পেমেন্ট করতে হবে। ভুক্তভোগীরা জমা হওয়া টাকা উত্তোলনের লোভে পড়ে তাদের চাওয়া অনুযায়ী টাকা দিতে থাকেন।

এভাবে প্রতারকেরা ধাপে ধাপে কারও কাছ থেকে ৬৮ হাজার, কারও কাছ থেকে ৫ লাখ, কারও কাছ থেকে ১৬ লাখ, কারও থেকে ২২ লাখ হাতিয়ে নেন।

নগর পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার(ডিবি-বন্দর ও পশ্চিম) মোহাম্মদ আলী হোসেনের সার্বিক তত্বাবধানে এবং অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার সামীম কবির ও সহকারী পুলিশ কমিশনার কাজী মো. তারেক আজিজের নির্দেশনায় বিশেষ টিমের পরিদর্শক হারুন অর রশিদ, উপপরিদর্শক মোহাম্মদ রাজীব হোসেন ও মো. রবিউল ইসলামের নেতৃত্বে একটি দল এই অভিযান পরিচালনা করে।

উপ-পুলিশ কমিশনার(ডিবি-বন্দর ও পশ্চিম) মোহাম্মদ আলী হোসেন বলেন,
‘চক্রটি পরিচালিত হচ্ছে দুবাই থেকে। চক্রের প্রধানদের একজন হলেন হাটহাজারীর সম্রাট আরেকজন সাতকানিয়ার মান্নান। তাঁরা দুবাই অবস্থান করে বিভিন্ন নামে ছদ্মবেশ ধারণ করে ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ভুয়া আউটসোর্সিংয়ের কথা বলে টাকা হাতিয়ে নিয়ে
হুন্ডি ব্যাবসায়ীর মাধ্যমে দুবাই নিয়ে যায়। তদন্তে এক ব্যক্তির গত ২ মাসে একটি অ্যাকাউন্টে ১ কোটি ৫৭ লাখ টাকা ও আরেকটি অ্যাকাউন্টে ২ কোটি ৫৭ লাখ টাকাসহ কারো অ্যাকাউন্টে ১৮ লাখ কারো একাউন্টে ১৫ লাখ টাকা লেনদেনের তথ্য পাওয়া গিয়েছে। এই প্রতারনার চক্রটি দেশব্যাপী বিশাল নেটওয়ার্ক গড়ে তুলেছে। আমরা তাদের বিষয়ে আরও তদন্ত করছি।’

আজকের সারাদেশ/এসএ

সর্বশেষ সংবাদ

প্রথমবারের মতো আন্ডারপাস নির্মাণের উদ্যোগ নিল চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন

কোরবানির বাজার: খাতুনগঞ্জে দেশি পেঁয়াজের রাজত্ব

চট্টগ্রামে বুদ্ধ পূর্ণিমায় মানুষের মুক্তি কামনায় প্রার্থনা

চট্টগ্রাম বোর্ড: সচিবকে আটকাতে কর্মচারীদের ব্যবহার চেয়ারম্যানের!

ফেসবুক খুঁজে দিল ৩০ বছর আগে হারিয়ে ফেলা তিন বান্ধবীকে

ভারতে চিকিৎসা নিতে গিয়ে খুন হলেন বাংলাদেশের এমপি আনোয়ারুল আজিম

‘জীবন বাজি রেখে রাজপথে যথেষ্ট ছিলেন ছাত্রলীগ নেতা হাসানুল করিম মানিক’

তিনটি ফুটবল মাঠের সমান বিশ্বের সবচেয়ে বড় সাবমেরিনের মালিক রাশিয়া

এভারকেয়ার হসপিটাল শিশু হৃদরোগ বিভাগের আয়োজনে ফ্রি হেলথ ক্যাম্প

২ লিটারের বেশি পানি না নিতে নোটিশ দিল চবির শেখ হাসিনা হলের প্রভোস্ট