ভোর ৫:০৮, সোমবার, ৬ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

চাচাতো ভাইদের বাঁচাতে গিয়ে নিজেই খুন হলেন প্রবাসী

আজকের সারাদেশ প্রতিবেদন:


চট্টগ্রামের বাঁশখালীতে জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের হামলা থেকে চাচাতো ভাইদের বাঁচাতে গিয়ে আহত হওয়া এক প্রবাসী মারা গেছেন। শনিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) সকালে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান দুলা মিয়া (৬০) নামের এই প্রবাসী।

নিহত দুলা মিয়া বাঁশখালীর বাহারছড়া ইউনিয়নের চাঁপাছড়ি গ্রামের মধ্যম চাঁপাছড়ি এলাকার আবুল খায়েরের ছেলে। তিনি দীর্ঘদিন প্রবাসে ছিলেন। সম্প্রতি তিনি দেশে ফিরেন। গত ৮ সেপ্টেম্বর প্রতিপক্ষের হামলায় তিনিসহ চারজন আহত হন। চাচাতো ভাইদের বাঁচাতে গিয়েই মূলত দুলা মিয়া হামলার শিকার হন বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, স্থানীয় আবু নাঈম চৌধুরীর সঙ্গে একই এলাকার হেলাল উদ্দিন চৌধুরীর জমি নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলছে। এ নিয়ে গত ৮ সেপ্টেম্বর উভয় পক্ষের মধ্যে মারামারি হয়। একপর্যায়ে লাঠিসোঁটা ও ধারালো অস্ত্র নিয়ে আবু নাঈমদের ওপর হামলা চালান হেলাল ও তাঁর সহযোগীরা। এতে নাঈম চৌধুরীর দুই ছেলে সেলিমুল ইসলাম চৌধুরী (৪৩) ও শরীফ চৌধুরী (২৮) গুরুতর আহত হন। খবর পেয়ে চাচাতো ভাইদের বাঁচাতে এগিয়ে আসেন দুই ভাই দুলা মিয়া ও নওয়া মিয়া। তাদের ওপরও হামলা চালান হেলাল ও তাঁর লোকজন। এতে গুরুতর আহত অবস্থায় চারজনকে চমেক হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করা হয়।

প্রায় এক সপ্তাহ ধরে চিকিৎসার পরও দুলা মিয়া সুস্থ হয়ে ফিরতে পারেননি।শনিবার সকালে মারা যান তিনি।

এই ঘটনায় নিহত দুলা মিয়ার চাচা আবু নাঈম চৌধুরী বাদী হয়ে ১১ জনের বিরুদ্ধে বাঁশখালী থানায় মামলা করেছেন। আসামিরা হলেন-হেলাল উদ্দিন, আজম উদ্দিন, বাবু মিয়া, মো. জোবায়ের, মো. কায়সার, নুরুন্নবী, নেজাম উদ্দিন, আব্দুল মজিদ, নুরুল আমিন, আব্দুল করিম ও মো. জিহান।
বাঁশখালীর বাহারছড়া পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এস আই মুজিবুর রহমান নিহতের বিষয়টি নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, ‘জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে এক সপ্তাহ আগে দুইপক্ষের মধ্যে মারামারি হয়। এতে দুই পক্ষের লোকজন আহত হন। তাঁদের মধ্যে একজন আজ মারা গেছেন। এই ঘটনায় উভয় পক্ষ পাল্টাপাল্টি মামলা করেছেন।’