রাত ১০:৪৮, বুধবার, ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

লাখো মানুষের আট মাসের দুর্ভোগ শেষ হলো অবশেষে

আজকের সারাদেশ প্রতিবেদন:

আটমাস ধরে বন্ধ থাকা চট্টগ্রাম নগরীর মুরাদপুর মোড়ে চশমা খালের ওপর নবনির্মিত কালভার্টটি খুলে দেওয়া হয়েছে। পুরোদমে শুরু হয়েছে কালভার্টের ওপর দিয়ে মুরাদপুর-অক্সিজেন সড়কের যান চলাচল। এরইমধ্যে দিয়ে উত্তর চট্টগ্রামের লাখো মানুষের দীর্ঘদিনের ভোগান্তির অবসান ঘটেছে

গত শনিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) বিকেলে চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (সিডিএ) চেয়ারম্যান এম জহিরুল আলম দোভাষ কালভার্টটি উদ্বোধন করেন। এরপর সন্ধ্যা থেকে যান চলাচল শুরু হয়।

চলতি বছরের ১৭ জানুয়ারি মহানগরীর মুরাদপুর মোড়ে চট্টগ্রাম শহরের জলাবদ্ধতা নিরসনের জন্য খাল পুনঃখনন, সম্প্রসারণ, সংস্কার ও উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় কালভার্টটি ভাঙা শুরু হয়। ওইদিন থেকে সাময়িক বন্ধ রাখা হয় মুরাদপুর-অক্সিজেন সড়কে যান চলাচল। এতে সড়কটি দিয়ে সকল ধরনের যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় চরম ভোগান্তিতে পড়েন স্থানীয়, পথচারী ও উত্তর চট্টগ্রামের হাজার হাজার।

সিডিএ চেয়ারম্যান জহিরুল আলম দোভাষ বলেন, চট্টগ্রাম থেকে যেন জলাবদ্ধতা দূর হয় সেজন্য প্রধানমন্ত্রী উদ্যোগ নেন এবং সেটা সিডিএর মাধ্যমে নেন। জলাবদ্ধতা থেকে মুক্তি দিতে প্রধানমন্ত্রী প্রকল্প দিয়েছেন সিডিএকে। বাংলাদশে সেনাবাহিনীর মাধ্যমে কাজটা করাচ্ছেন। শহরের পানি নিষ্কাশনে যে ড্রেন আছে তার পাঁচ ভাগের এক ভাগ এ প্রকল্পে অন্তর্ভুক্ত। শহরে খালসহ ১ হাজার ৬৮০ কিলোমিটার ড্রেন আছে। সিডিএ ৩১৪ কিলোমিটারে কাজ করছে। আমাদের অংশটা শেষ হলে মানুষের কষ্ট অনেক কমে আসবে। জলাবদ্ধতা থেকে রেহাই পাবেন। এখানে পানি উন্নয়ন বোর্ড, সিটি কর্পোরেশনও কাজ করছে। সবগুলোর কাজ শেষ হলে চট্টগ্রামবাসী জলাবদ্ধতা থেকে সম্পূর্ণ মুক্তি পাবেন।

‘এ এলাকায় যারা বসবাস করেন তাদের ধন্যবাদ জানাচ্ছি। তারা অনেকদিন কষ্ট সহ্য করেছেন। এখানে রাস্তা বন্ধ ছিল। ওয়াসার পাইপ ছিল। ওয়াসার কাজ শেষ না হওয়া পর্যন্ত রাস্তার কাজ শেষ করতে পারিনি।’

সিডিএ চেয়ারম্যান বলেন, আজ (শনিবার) থেকে পবিত্র রবিউল আওয়াল মাস শুরু হবে। ১২ রবিউল আওয়াল যে জুলুস হয় তা এ রাস্তা দিয়ে যায়। আজ আমরা উদ্বোধন করে দিলাম, যাতে সুন্দরভাবে মিলাদুন্নবীর জুলুসটা যেতে পারে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন প্রকল্প বাস্তবায়নকারী সংস্থা সেনাবাহিনীর প্রকল্প পরিচালক লে. কর্নেল শাহ আলী। উপস্থিত ছিলেন সেনাবাহিনীর ৩৪ ইঞ্জিনিয়ার কনস্ট্রাকশনের ভারপ্রাপ্ত কমান্ডার কর্নেল আজিজুর রউফ, সিডিএর বোর্ড সদস্য জসিম উদ্দিন শাহ, প্রকৌশলী মো. মুনির উদ্দিন আহমদ, মো. ফারুক, অ্যাডভোকেট জিনাত সোহানা, প্রধান প্রকৌশলী কাজী হাসান বিন শামস্‌ ও সিডিএর প্রকল্প পরিচালক আহমদ মঈনুদ্দিন।

চট্টগ্রাম সড়ক পরিবহণ মালিক গ্রুপের মহাসচিব মঞ্জুরুল আলম চোধুরী বলেন, অবশ্যই সিডিএকে ধন্যবাদ জানাবো। এই কালভার্টটি খুলে দেওয়ার মাধ্যমে যাত্রী ও পথচারীদের দীর্ঘদিনের কষ্ট দূর হয়েছে। সিডিএ সবসময় জনকল্যাণমুখী কাজ করে থাকেন। কালভার্টটি নির্মাণের ফলে ওই স্থানের যে জলবদ্ধতার সমস্যা সেটিও আর হবে না।

সড়কটি দিয়ে চলাচল করা অক্সিজেন এলাকার বাসিন্দা সাইফুল ইসলাম বলেন, দীর্ঘদিন কালভার্টের কাজের জন্য এই সড়ক দিয়ে গাড়ি চলাচল বন্ধ ছিল। যার কারণে অনেক দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে আমাদের। অক্সিজেন থেকে গাড়ি এসে মুরাদপুর রেললাইনের সামনে যাত্রী নামিয়ে দিত, বাকি পথ হেটেই পার হতে হয়েছিল। আজকে আগের মতো মুরাদপুর মোড়ের ওই পাড়েও গাড়ি যাচ্ছে দেখে ভাল লাগছে। এখন আর গেটে যেতে হচ্ছে না।

আতুরারডিপো এলাকার বাসিন্দা জাহেদুল করিম বলেন, শহরের ব্যস্ততম এই সড়ক দিয়ে আক্সিজেন হয়ে খাগড়াছড়ি, রাঙামাটি জেলা ছাড়াও উত্তর চট্টগ্রামের রাউজান, রাঙ্গুনিয়া, হাটহাজারী, ফটিকছড়ি উপজেলার বাসিন্দারা চলাচল করেন। দীর্ঘদিন এই সড়কটি বন্ধ থাকায় প্রতিদিন অন্তত লক্ষাধিক মানুষের ভোগান্তি পোহাতে হতো। এটি চালুর মাধ্যমে দীর্ঘ আটমাস পর এই ভোগান্তির অবসান হয়েছে। দু’পাশে পুরোদমে যানবাহন চলাচল করছে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, কালভার্টটি নির্মাণে খরচ হয়েছে সাড়ে ৪ কোটি টাকা। এর মধ্যে ৩ কোটি টাকা মূল ব্রিজ নির্মাণ এবং বাকি দেড় কোটি টাকা খরচ পাইপলাইন সরাতে। কালভার্টটির দৈর্ঘ্য ২১ মিটার এবং প্রস্থ ১০ মিটার। পথচারী চলাচলে কয়েকদিনের মধ্যে কালভার্টটিতে ফুটপাত করে দেওয়া হবে।

জানা গেছে, মে মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহে নতুন কালভার্টটির নির্মাণকাজ শেষ হয়। এর আরো এক মাস পর ২৫ জুন কালভার্টটির আংশিক খুলে দেওয়া হয় যান চলাচলের জন্য। ঈদুল আজহার পর সেটা আবার বন্ধ করে দেওয়া হয়। এরপর ৮ সেপ্টেম্বর খুলে দেওয়া হয়, যা বুধবার বন্ধ করে দেওয়া হয়। সর্বশেষ শনিবার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন হলো।

উত্তর চট্টগ্রামের হাটহাজারী, রাউজান, রাঙ্গুনিয়া, ফটিকছড়ি ছাড়াও রাঙামাটি এবং খাগড়াছড়ির যানবাহনগুলো মুরাদপুর-অঙিজেন সড়ক হয়ে চলাচল করে। এই অংশটি শহরের কয়েকটি ওয়ার্ডের লোকজনের চলাচলের অন্যতম প্রধান সড়ক। ফলে মুরাদপুর মোড়ে দীর্ঘ আটমাস যান চলাচল বন্ধ রাখায় প্রতিদিন কয়েকলাখ মানুষকে দুর্ভোগ পোহাতে হয়।

আজকের সারাদেশ/এসএম

সর্বশেষ সংবাদ

প্রথমবারের মতো আন্ডারপাস নির্মাণের উদ্যোগ নিল চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন

কোরবানির বাজার: খাতুনগঞ্জে দেশি পেঁয়াজের রাজত্ব

চট্টগ্রামে বুদ্ধ পূর্ণিমায় মানুষের মুক্তি কামনায় প্রার্থনা

চট্টগ্রাম বোর্ড: সচিবকে আটকাতে কর্মচারীদের ব্যবহার চেয়ারম্যানের!

ফেসবুক খুঁজে দিল ৩০ বছর আগে হারিয়ে ফেলা তিন বান্ধবীকে

ভারতে চিকিৎসা নিতে গিয়ে খুন হলেন বাংলাদেশের এমপি আনোয়ারুল আজিম

‘জীবন বাজি রেখে রাজপথে যথেষ্ট ছিলেন ছাত্রলীগ নেতা হাসানুল করিম মানিক’

তিনটি ফুটবল মাঠের সমান বিশ্বের সবচেয়ে বড় সাবমেরিনের মালিক রাশিয়া

এভারকেয়ার হসপিটাল শিশু হৃদরোগ বিভাগের আয়োজনে ফ্রি হেলথ ক্যাম্প

২ লিটারের বেশি পানি না নিতে নোটিশ দিল চবির শেখ হাসিনা হলের প্রভোস্ট