রাত ১:৩২, শনিবার, ১লা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

আইআইইউসি থেকে মাসে সাড়ে ১১ লাখ টাকা ভাতা নেন নদভী

আজকের সারাদেশ প্রতিবেদন
আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, চট্টগ্রাম (আইআইইউসি) থেকে সম্মানি ও ঋণ-দুটোই নিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়টির বোর্ড অব ট্রাস্টির চেয়ারম্যান, চট্টগ্রাম-১৫ (সাতকানিয়া-লোহাগাড়া) সংসদ সদস্য আবু রেজা মুহাম্মদ নেজামুদ্দিন নদভী। রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে জমা দেওয়া হলফনামা থেকে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও চট্টগ্রাম–১৫ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করবেন আবু রেজা মুহাম্মদ নেজামুদ্দিন নদভী। এর আগে ২০১৪ ও ২০১৮ তে অনুষ্ঠিত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনি এই আসন থেকে বিজয়ী হয়েছেন।

সংসদ সদস্য আবু রেজা মুহাম্মদ নেজামুদ্দিন নদভীর হলফনামা বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, নদভী আইআইইউসি থেকে সভা ও সম্মানি থেকে বার্ষিক ১ কোটি ৩৭ লাখ ৬১ হাজার ৪৪২টাকা ভাতা পেয়েছেন। যা তাঁর জাতীয় সংসদ থেকে পাওয়া ভাতার প্রায় ছয়গুণ। সংসদ সদস্য হিসেবে জাতীয় সংসদ থেকে তিনি এই সময়ে ভাতা পেয়েছেন ২৩ লাখ ১৫ হাজার ৭০৭টাকা। অর্থাৱ প্রতি মাসে নদভী আইআইইউসি থেকে ভাতা পান প্রায় সাড়ে সাড়ে ১১ লাখ টাকা।

শুধু নদভী একা নন, তাঁর ওপর নির্ভরশীল ব্যক্তিও আইআইইউসি থেকে বড় অংকের সম্মানি পেয়েছেন। ৪৪ লাখ ২২ হাজার ৪৪৬টাকা সম্মানি পেয়েছেন ওই নির্ভরশীল ব্যক্তি। আইআইইউসি বোর্ড অব ট্রাস্টিজের সদস্য এবং ফিমেল একাডেমিক জোনের চেয়ারম্যানের দায়িত্বে আছেন নদভীর স্ত্রী রিজিয়া রেজা চৌধুরী। ধারণা করা হচ্ছে নির্ভরশীল ব্যক্তি বলতে এখানে স্ত্রীকে বুঝিয়েছেন নদভী।

শুধু সম্মানি নন, আইআইইউসি থেকে ঋণও নিয়েছেন নদভী। হলফনামার দায়-অংশে নদভী উল্লেখ করেন, আইআইইউসি থেকে নদভী ৪৬ লাখ ২৯ হাজার ৫০০টাকা ঋণ নিয়েছেন।

২০২১ সালের ১ মার্চ আইআইইউসির বোর্ড অব ট্রাস্টির পরিবর্তন হয়। ওইদিন শিক্ষা মন্ত্রণালয় ২১ সদস্যের নতুন বোর্ডের অনুমোদন দেয়। বোর্ডের চেয়ারম্যান করা হয় আবু রেজা মুহাম্মদ নেজামুদ্দিন নদভীকে। বোর্ডের বাকি সদস্যরাও সরকারি দল আওয়ামী লীগ নতুন বোর্ড গঠন নিয়ে দুই পক্ষ পাল্টাপাল্টি ব্যাখ্যা দিয়েছিল। কোনো ধরনের নিয়ম-নীতি না মেনে চর দখলের মতো নতুন ট্রাস্টি বোর্ড গঠন করা হয়েছিল বলে দাবি করেছিল কর্তৃত্ব হারানো পক্ষটি। তবে পাল্টা অভিযোগ তোলে নদভী তখন দাবি করেছিলেন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী বিশিষ্ট নাগরিকদের নিয়েই বোর্ড গঠন করা হয়েছে।

নদভীর সোনা ৯০, স্ত্রীর ৫০ :

স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তির পাশাপাশি নদভী ও তার স্ত্রী বিপুল পরিমাণ স্বর্ণর মালিক। তবে স্ত্রীর চেয়ে নদভীর প্রায় দ্বিগুণ স্বর্ণ রয়েছে। এর মধ্যে নদভীর সোনার পরিমাণ ৯০ ভরি, আর স্ত্রীর স্বর্ণের পরিমাণ ৫০ ভরি। তবে নদভী ৯০ ভরি স্বর্ণের দাম দেখিয়েছেন আড়াইলাখ টাকা আর স্ত্রীর ৫০ ভরি স্বর্ণের দাম দেখিয়েছেন ৫ লাখ টাকা।

এছাড়া নদভীর নগদ টাকা রয়েছে ৪ লাখ ৫৮ হাজার ৯৪১ টাকা এবং তার স্ত্রীর রয়েছে ২০ লাখ ২১ হাজার ২৪৬ টাকা। নদভীর নামে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে জমা রয়েছে জমা রয়েছে ১ কোটি ৬৪ লাখ ৯৬ হাজার ৩৪৪ টাকা এবং তার স্ত্রীর রয়েছে ১৩ লাখ ৪১ হাজার ৯৫ টাকা। নদভীর ফিক্সড ডিপোজিট রয়েছে ২ কোটি ২৮ লাখ ৮৭ হাজার ২২০ টাকা এবং ডিপিএস (ডিপোজিট পেনশন স্কিম) রয়েছে ২ লাখ ৭২ হাজার ৯৯৪ টাকা। নদভীর স্ত্রী রিজিয়ার নামে ফিক্সড ডিপোজিট রয়েছে ১৮ লাখ ৯৩ হাজার ৮৭৬ টাকা এবং ডিপিএস রয়েছে ৭ লাখ ৯৮ হাজার ৭৮ টাকা।

সর্বশেষ সংবাদ

জাহাজে করে এক মাসের খাদ্যপণ্য যাচ্ছে সেন্টমার্টিনে

সুপার এইটে আফগানিস্তান, নিউজিল্যান্ডের বিদায়

চবিতে ঘুরতে এসে ছিনতাইকারীর রামদার আঘাতে মিলিটারি একাডেমি শিক্ষার্থী আহত

ময়নাতদন্তের জন্য চট্টগ্রামে ৪৫ দিন পর কবর থেকে তোলা হল লাশ

নেদারল্যান্ডসকে হারিয়ে সুপার এইটের দৌড়ে এগিয়ে  বাংলাদেশ

তবে কি আনার হত্যার নির্দেশদাতা ঝিনাইদহ আ.লীগ সম্পাদক মিন্টু!

বকেয়া বেতন ও ঈদ বোনাসের দাবিতে চট্টগ্রামে পোশাক শ্রমিকদের বিক্ষোভ

বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কার মধ্যে ফেরি চলাচল শুরু হতে যাচ্ছে

নৌযান চলাচল বন্ধ, সেন্ট মার্টিনে খাদ্যসংকট চরমে

১০ ক্যাটাগরিতে বাংলাদেশীদের ভিসা নিষেধাজ্ঞা তুলে নি‌য়েছে ওমান