সকাল ৭:৫৯, রবিবার, ৯ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

স্বতন্ত্র প্রার্থী সুমনের মাথায় হাত রেখে মাহতাবের ‘দোয়া’!

আজকের সারাদেশ প্রতিবেদন:
কিছুটা মাথা নুইয়ে দাঁড়িয়ে আছেন চট্টগ্রাম-১১ (বন্দর-পতেঙ্গা) আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী জিয়াউল হক সুমন। তাঁর মাথায় হাত রেখে ‘দোয়া করে’ দিচ্ছেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী। এই দৃশ্যটি শনিবার (২ ডিসেম্বর) রাতের। মাহতাব উদ্দিন চৌধুরীর দামপাড়ার বাসায় মতবিনিময় সভা করতে গেলে সুমনকে এভাবেই স্বাগত জানান তিনি।

চট্টগ্রাম-১১ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন বর্তমান সংসদ সদস্য এম এ লতিফ। তিনি এই আসনের তিনবারের সংসদ সদস্য। তবে ২০০৮ সালে নৌকা প্রতিকে মনোনয়নের আগে আওয়ামী লীগের কেউ ছিলেন না লতিফ। সংসদ সদস্য হওয়ার প্রায় ৫ বছর পর তিনি নগর আওয়ামী লীগের সদস্য হন। ‘উড়ে এসে জুড়ে বসা’ এমন একজনকে এবার আর সহ্য করছেন নগর আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা। লতিফকে ঠেকাতে তাঁরা সবাই একাট্টা হয়েছেন। তাঁরা সমর্থন দিচ্ছেন আওয়ামী লীগের মনোনয়ন না পেয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হওয়া জিয়াউল হক সুমনকে। মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছিরের পর এবার সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরীও এবার প্রকাশ্যে সুমনের প্রতি তাঁর সমর্থন লুকালেন না।

সুমনসহ নেতাকর্মীদের সঙ্গে মতবিনিময়ের সময় মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী বলেন, ‘জনপ্রিয়তা থাকলে ভয় নেই, ভোটাররাই তাদের প্রতিনিধি নির্বাচন করবেন। আওয়ামী লীগ সভাপতি ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন,দলীয় প্রতীকের প্রার্থীর পাশাপাশি দলের যে কোনো নেতা বা ব্যক্তি স্বতন্ত্র প্রার্থী হতে পারবেন। কারণ নির্বাচনকে প্রতিযোগিতামূলক করতে হবে।’

এ সময় জিয়াউল হক সুমনকে নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণায় মানুষের দুয়ারে দুয়ারে যেতে আহ্বানও জানান মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী।

সভায় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মহানগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি নঈম উদ্দিন চৌধুরী, চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা শফর আলী, বন্দর থানা আওয়ামী লীগের
সাধারণ সম্পাদক হাজী মো.ইলিয়াস, ৩৮ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হাজী মো.হাসান, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের উপ-কমিটির সদস্য শেখ নওশেদ সারোয়ার, ৩৬ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মোরশেদ আলী, ৪০ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো.আজাদ, ৩৮ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো.হাসান মুন্না প্রমুখ।

আজকের সারাদেশ/০২ডিসেম্বর/টিএইচ/এএইচ