সন্ধ্যা ৭:২৪, সোমবার, ১০ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ফের বাড়ছে রেমিট্যান্স

আজকের সারাদেশ ডেস্ক:
দেশে করোনার ধাক্কার পর ফের বাড়ছে রেমিট্যান্স। ডলার সংকটের মধ্যে পরপর দুই মাসে রেমিট্যান্সের ইতিবাচক প্রবৃদ্ধি কিছুটা হলেও আশা জাগিয়েছে।

চলতি বছরের সেপ্টেম্বরে সাড়ে তিন বছরের মধ্যে সবচেয়ে কম প্রবাসী আয় এসেছিল দেশে। যদিও তার পরের মাস অক্টোবরেই ইতিবাচক ধারায় ফিরে রেমিট্যান্স প্রবাহ। সে মাসে প্রবাসীরা দেশে মোট রেমিট্যান্স পাঠায় প্রায় ১৯৮ কোটি ডলার, যা তার আগের মাসের চেয়ে প্রায় ৪৮ শতাংশ বেশি।

সে সময় নভেম্বর ঘিরে প্রত্যাশা ছিল যে, রেমিট্যান্স ছাড়িয়ে যাবে ২ বিলিয়ন তথা ২০০ কোটি ডলারের বেশি। শেষ পর্যন্ত তা না হলেও কাছাকাছি এসেছে প্রবাসীদের পাঠানো আয়।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের হালনাগাদ তথ্য বলছে, সদ্য শেষ হওয়া নভেম্বরে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে প্রবাসীরা রেমিট্যান্স পাঠিয়েছে ১৯৩ কোটি ডলার বা ১.৯৩ বিলিয়ন ডলার। বর্তমান ব্যাংক রেট হিসাবে যা প্রায় ২১ হাজার ২৩০ কোটি টাকা (প্রতি ডলার ১১০ টাকা হিসাবে)।

বর্তমান প্রেক্ষাপটে রেমিট্যান্সের পরিমাণকে সন্তোষজনক বলছেন ব্যাংকাররা। যদিও তা অক্টোবরের চেয়ে প্রায় পাঁচ কোটি ডলার কম।

বছরের দিক থেকে দেখলে প্রবৃদ্ধির পরিমাণটা উল্লেখযোগ্য। ২০২২ সালের নভেম্বর মাসে দেশে রেমিট্যান্স এসেছিল ১৫৯.৫ কোটি ডলার। সেই হিসাবে বছরের ব্যবধানে রেমিট্যান্সের প্রবৃদ্ধি দাঁড়িয়েছে প্রায় ২১ শতাংশ।

বর্তমানে দেশের অভ্যন্তরে দফায় দফায় বাড়ছে প্রয়োজনীয় বৈদেশিক মুদ্রা ডলারের দাম। গেল কয়েক মাসে ব্যাংকগুলোতেও বেড়েই চলেছে ডলারের চাহিদা। রিজার্ভ থেকে কয়েক দফায় ডলার বিক্রি করেও তা পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হয়নি।

ডলার সংকটের মধ্যে কেন্দ্রীয় ব্যাংক বিভিন্ন ব্যবস্থা নিচ্ছে। অপ্রয়োজনীয় ও বিলাসী পণ্য আমদানি কমাতে নানা পদক্ষেপ নিতে দেখা গেছে দেশের ব্যাংক খাতের অভিভাবকদের।

গভর্নর আবদুর রউফ তালুকদার আমদানি-রপ্তানির ঘাটতি মেটাতে এরই মধ্যে বেশ কিছু পদক্ষেপ নিয়েছেন। ডিসেম্বরের শেষ নাগাদ ডলার সংকট কিছুটা কমে আসবে বলে এরই মধ্যে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন তিনি।

ডলার সংকট কমানোর পাশাপাশি রিজার্ভের ওপর চাপ কমাতেও বৈদেশিক মুদ্রা আসা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের হিসাব অনুযায়ী, চলতি অর্থবছরের পাঁচ মাসে রিজার্ভ কমেছে প্রায় ৬ বিলিয়ন ডলার। বর্তমানে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের হিসাবে রিজার্ভ নেমে এসেছে ২৫ বিলিয়নে। অন্যদিকে বিপিএম-৬ মেথডের হিসাবে রিজার্ভ নেমে এসেছে ১৯ বিলিয়নের ঘরে। এমন পরিস্থিতিতে ডলার সংকট কমানো ও রিজার্ভ শক্তিশালী করতে নীতি নির্ধারকরা তাকিয়ে রয়েছেন বাড়তি রেমিট্যান্স আর রপ্তানি আয়ের দিকে। পরপর দুই মাসে প্রায় ৪ বিলিয়নের কাছাকাছি রেমিট্যান্স আসাতে স্বস্তি পেতে পারেন তারা।

এদিকে নভেম্বরে প্রবাসীরা সবচেয়ে বেশি রেমিট্যান্স পাঠিয়েছে বেসরকারি ব্যাংকের মাধ্যমে।

হিসাবে দেখা যায়, মোট ১৯৩ কোটি ডলারের মধ্যে বেসরকারি ব্যাংকের মাধ্যমে এসেছে ১৭২ কোটি ৬৬ লাখ ডলার। রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলোর মাধ্যমে এসেছে ১৪ কোটি ৪২ লাখ ডলার। অন্যদিকে বিশেষায়িত ব্যাংকের মাধ্যমে এসেছে ৫ কোটি ৩১ লাখ ডলার। এ ছাড়া ৫৯ লাখ ডলার রেমিট্যান্স এসেছে বৈদেশিক বাণিজ্যিক ব্যাংকের মাধ্যমে।

একক ব্যাংক হিসেবে এ মাসেও সবচেয়ে বেশি রেমিট্যান্স এসেছে ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেডের মাধ্যমে। ব্যাংকটির মাধ্যমে এককভাবে রেমিট্যান্স এসেছে ৪৭ কোটি ২২ লাখ ডলার। দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা পূবালী ব্যাংকের মাধ্যমে এসেছে প্রায় ১৪ কোটি ডলার।

এদিকে ক্রমান্বয়ে কমে যাচ্ছে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকের মাধ্যমে রেমিট্যান্স আসা। অগ্রণী ব্যাংকের মাধ্যমে নভেম্বরে রেমিট্যান্স এসেছে ৬ কোটি ৩০ লাখ ডলার। এ ছাড়া সর্ববৃহৎ রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংক সোনালীর মাধ্যমে রেমিট্যান্স এসেছে তিন কোটি ৪৩ লাখ ডলার।

সর্বশেষ সংবাদ