সকাল ৭:৪৩, রবিবার, ৯ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

চট্টগ্রামের ১৬৮ স্পট ঝুকিঁপূর্ণ, রেলের নিরাপত্তায়জোরদার ব্যবস্থা নেয়ার পরিকল্পনা

আজকের সারাদেশ প্রতিবেদন:

দেশের নানান প্রান্তে রেললাইন কেটে ফেলা, নাট বল্টু ও ফিশপ্লেট খুলে ফেলা, ট্রেনে আগুন, ককটেল নিক্ষেপ, রেলপথে প্রতিবন্ধকতা তৈরীর ঘটনা অনেকটা আতঙ্কিত করে তুলেছে সাধারণ যাত্রীদের। ভাবিয়ে তুলেছে রেলের কর্মকর্তাদেরও। ফলে এসব অনাকাঙ্খিত ঘটনা এড়াতে রেলপথ নিরাপদ করার উদ্যোগ নিয়েছে রেল কর্তৃপক্ষ। এজন্য ১৬৮ টি স্পটকে ঝুকিঁপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করেছে সংস্থাটি। সেই সাথে এসব স্থানের সুরক্ষায় এক হাজারের বেশি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য মোতায়েনের সুপারিশও করা হয়েছে।

রেলওয়ের পূর্বাঞ্চলের সহকারী চিফ অপারেটিং সুপারিনটেনডেন্ট মোহাম্মদ আবু বক্কর সিদ্দিকী স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে এ সংক্রান্ত নির্দেশনা দেওয়া হয়।

নির্দেশনায় বলা হয়েছে, ঝুঁকিপূর্ণ এলাকায় রেলওয়ে ট্রাকগুলো ওয়েম্যান, আরএনবি ও আনসার সদস্যদের মাধ্যমে দিনে এবং রাতে সার্বক্ষণিক পাহারার ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। যাতে প্রতি এক ঘণ্টায় সর্বনিম্ন একবার করে পেট্রোলিং করা হয়। এ বিষয়ে সার্বক্ষণিক যোগাযোগের জন্য প্রতিটি কন্ট্রোল অফিসে কর্তব্যরত ওয়েম্যান, আরএনবি ও আনসার স্টাফদের মোবাইল নম্বর সংরক্ষণ করতে হবে।

বিশেষ করে রাত ১১টা থেকে ভোর ৬টা পর্যন্ত রেলওয়ে ট্র্যাকগুলো নিবিড়ভাবে পাহারার ব্যবস্থার
কথা বলা হয়েছে বিজ্ঞপ্তিতে।

এছাড়া প্রতিটি ট্রেন ছাড়ার আগে রেলপথে ট্রলি রান করানোর কথা বলা হয়েছে। নিয়মিত টহল বৃদ্ধির পাশাপাশি বিশেষ টহলের ব্যবস্থা করা হবে। এজন্য পুলিশ ও আনসার সদস্য মোতায়েনের পরিকল্পনার কথা জানানো হয়। তবে এক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় নিজস্ব জনবল না থাকায় রেলওয়ে অতিরিক্ত আইনশৃঙ্খলা বাহিনী নিয়োজিত করার কথা জানান।

বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাপরিচালক কামরুল আহসান বলেন, সাম্প্রতিক দুর্ঘটনা স্বাভাবিক ট্রেন চলাচলে প্রতিবন্ধকতা তৈরি করছে। রাতের ট্রেনগুলো চলাচলে গতি কমিয়ে দেওয়া হয়েছে। গুরুত্বপূর্ণ রেলপথগুলোতে কয়েক ঘণ্টা পরপর ট্রলি চালিয়ে দেখা হচ্ছে।

আজকের সারাদেশ/একে