সন্ধ্যা ৬:২৫, সোমবার, ১০ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

চট্টগ্রামে পাহাড় কাটা বন্ধে জেলা প্রশাসনের সাইন বোর্ড স্থাপন

আজকের সারাদেশ প্রতিবেদন:
চট্টগ্রামে কাটার সম্ভাবনা আছে এমন ২৬ টি পাহাড়ে সাইনবোর্ড স্থাপন করেছে জেলা প্রশাসন। এসব পাহাড়ের মধ্যে ১৬ টি সরকারি বিভিন্ন সংস্থা ও বাকী ১০ টি ব্যক্তি মালিকানাধীন।

সোমবার (২৫ ডিসেম্বর) নগরীর লিংক রোড এলাকায় ঝুঁকিতে থাকা পাহাড়ের পাদদেশে এসব সাইনবোর্ড স্থাপন করা হয়। এসব পাহাড়ে ঝুকিপূর্ণভাবে ৬ হাজার ৫৫৮ টি পরিবার বসবাস করছে বর্তমানে।

এর আগে গেলো ৮ আগস্ট চট্টগ্রাম পাহাড় ব্যবস্থাপনা কমিটির ২৭ তম সভার সিদ্ধান্ত ও উচ্চ আদালতের রিট পিটিশন আদেশ অনুযায়ী পাহাড় ও টিলা কাটায় নিষেধাজ্ঞা বাস্তবায়নে মাঠে নামে জেলা প্রশাসন। তারই অংশ হিসেবে সোমবার ঝুঁকিতে থাকা এসব পাহাড়ের পাদদেশে সাইনবোর্ড স্থাপন করেন চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক আবুল বাশার মোহাম্মদ ফখরুজ্জামান। উচ্চ আদালতের আদেশ অমান্য করলে পরিবেশ সংরক্ষণ আইনে দায়ীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার হুশিয়ারী দেন তিনি।

এসময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মো. আবদুল মালেক, রেভিনিউ ডেপুটি কালেক্টর মাজহারুল ইসলাম , হাটহাজারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এ.বি.এম মশিউজ্জামান, কাট্টলী সার্কেলের সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. উমর ফারুক, হাটহাজারী সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. আবু রায়হান চট্টগ্রাম মহানগরের সদর সার্কেলের সহকারী কমিশনার (ভূমি) খন্দকার মাহমুদুল হাসান, আগ্রাবাদ সার্কেলের সহকারী কমিশনার (ভূমি) আবদুল্লাহ খায়রুল ইসলাম চৌধূরী, চান্দগাও সার্কেলের সহকারী কমিশনার (ভূমি) ফেরদৌস আরা, বাকলিয়া সার্কেলের সহকারী কমিশনার (ভূমি) এ. এফ. এম শামীম, স্টাফ অফিসার ও সহকারী কমিশনার প্লাবন কুমার বিশ্বাস প্রমূখ।

জেলা প্রশাসক আবুল বাসার মোহাম্মদ ফখরুজ্জামান বলেন, ‘পাহাড় ধসের বিষয়ে মাইকিং , লিফলেট বিতরণ ও সংবাদপত্র ও টিভি চ্যানেল এর মাধ্যমে সচেতনতা বৃদ্ধিতে কাজ করছে জেলা প্রশাসন। ইতোমধ্যে পাহাড় কাটার দায়ে প্রায় ৩০ জনের বিরুদ্ধে পরিবেশ আদালতে মামলা চলমান রয়েছে এবং পাহাড় কাটা প্রতিরোধ করতে মনিটরিং ও নিয়মিত মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হয়।’

তিনি আরও বলেন, ‘পাহাড় খেকোরা যতই শক্তিশালী হোক না কেন তাদেরকে অবশ্যই আইনের আওতায় আনা হবে। ঝুঁকিপূর্ণ পাহাড়ে অবৈধ বসবাসকারীদের নিরাপত্তার স্বার্থে উচ্ছেদ কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে। সতর্কীকরণ বিজ্ঞপ্তি দিয়ে পাহাড়কাটা পুরোপুরি বন্ধ করা সম্ভব নয়। তবে এসব বিজ্ঞপ্তি দেখে অন্তত জনসাধারণ পাহাড় কাটার বিষয়ে সচেতন হবে। পাহাড়ে অবৈধ দখল ও কাটতে দেখলে তাঁরা সরাসরি থানায়, পরিবেশ অদিদপ্তর ও জেলা প্রশাসনের কাছে অভিযোগ করতে পারবেন। পাহাড় কাটার সঙ্গে জড়িত তাঁদের বিরুদ্ধে মামলা করা হচ্ছে। পাহাড়ে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদেও নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে।’

এছাড়াও সংশিষ্ট সরকারি সংস্থা নিজ উদ্ধোগে পাহাড়ে অবৈধ ভাবে বসবাস কারীদের যাতে সরিয়ে নেয় সে সম্পর্কে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে বলে জানান তিনি।

আজকের সারাদেশ/২৫ডিসেম্বর/এএইচ

সর্বশেষ সংবাদ