রাত ৮:৩০, মঙ্গলবার, ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

চট্টগ্রামে ১২ আসনে বিজয়ী নৌকার প্রার্থী, ৩ আসনে স্বতন্ত্র

আজকের সারাদেশ প্রতিবেদন:
দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে চট্টগ্রামের ১৬ আসনের মধ্যে ১২ টিতে জয় পেয়েছে আওয়ামী লীগের মনোনীত নৌকার প্রার্থী। ৩ আসনে বড় ব্যবধানে জিতেছে স্বতন্ত্র প্রার্থী। বাকী একটি আসনে জয় পেয়েছে জাতীয় পার্টির মনোনীত লাঙ্গল প্রতীকের প্রার্থী।

নবনির্বাচিত ১৬ জনের মধ্যে পুরোনো এমপি রয়েছেন ৯ জন। সেই হিসেবে এবার চট্টগ্রামের ৭ টি আসনের জনসাধারণ পেয়েছেন সংসদে নতুন প্রতিনিধি।

রিটার্নিং কর্মকর্তা ঘোষিত বেসরকারি ফলাফল অনুযায়ী চট্টগ্রাম ১ আসনে ৮৯ হাজার ৬৪ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছে বর্ষীয়ান আওয়ামী লীগ নেতা ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেনের ছেলে মাহবুব উর রহমান রুহেল। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী গিয়াস উদ্দিন পেয়েছেন ৫২ হাজার ৯৯৫ ভোট। এই আসনে রুহেল- গিয়াস ছাড়াও প্রতিদ্বন্দ্বীতা করেছেন আরও ৩ জন।

চট্টগ্রাম-২ (ফটিকছড়ি) আসনের ১৪২ কেন্দ্রে ১ লাখ ৬৮৫ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন চট্টগ্রামে আওয়ামী লীগের মনোনীত নৌকা প্রতীকের একমাত্র নারী প্রার্থী খাদিজাতুল আনোয়ার সনি। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী তরমুজ প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী হোসাইন মোহাম্মদ আবু তৈয়ব পেয়েছেন ৩৬ হাজার ৫৬৬ ভোট। এই আসনে সনি-তৈয়ব ছাড়াও ভোটের মাঠে ছিলেন আরও ৭ প্রার্থী।

চট্টগ্রাম-৩ (সন্দ্বীপ) আসনে ৫৪ হাজার ৭৫৬ ভোট পেয়ে টানা তৃতীয়বাবের মত বিজয়ী হয়েছেন আওয়ামী লীগের মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মাহফুজুর রহমান মিতা। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ঈগল প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী ডা. জামাল উদ্দিন পেয়েছেন ২৮ হাজার ৭০ ভোট। এই দুজন ছাড়াও সন্দ্বীপ আসনে সংসদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করেছেন আরও ৬ প্রার্থী।

চট্টগ্রাম-৪ (সীতাকুণ্ড) আসনে ১ লাখ ৪২ হাজার ৭০৮ ভোটে জয়ী হয়েছেন আওয়ামী লীগের মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী এস এম আল মামুন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী জাতীয় পার্টি মনোনীত লাঙ্গল প্রতীকের প্রার্থী দিদারুল কবির পেয়েছেন ৪ হাজার ৮৮০ ভোট। এছাড়াও এই আসনে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করেছেন আরও ৫ জন।

চট্টগ্রাম-৫ (হাটহাজারী) আসনে টানা তৃতীয় বারের মতো সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন জোটের মনোনয়ন পাওয়া জাতীয় পার্টির লাঙ্গল প্রতীকের আনিসুল ইসলাম। তিনি পেয়েছেন ৫০ হাজার ৯৭৭ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী কেটলি প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী শাহজাহান পেয়েছেন ৩৬ হাজার ২৫১ ভোট।

চট্টগ্রাম-৬ (রাউজান) আসনে টানা পঞ্চম বারের মত জয়ী হয়েছেন আওয়ামী লীগের মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী। তিনি পেয়েছেন ২ লাখ ২১ হাজার ৫৭২ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ট্রাক প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী শফিউল আজম পেয়েছেন ৩ হাজার ১৫৯ ভোট।

চট্টগ্রাম-৭ (রাঙ্গুনিয়া) আসনে চতুর্থ বারের মত সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। তিনি পেয়েছেন ১ লাখ ৯৮ হাজার ৯৭৬ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ইসলামি ফ্রন্টের মোমবাতি প্রতীকের প্রার্থী মুহাম্মদ ইকবাল হাছান পেয়েছেন ৯ হাজার ৩০১ ভোট।

চট্টগ্রাম-৮ (বোয়ালখালী-চাদগাঁও) আসনে ৭৮ হাজার ২৬৬ ভোট পেয়ে প্রথমবারের মতো সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন আব্দুছ ছালাম। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী কেটলি প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী বিজয় কুমার চৌধুরী পেয়েছেন ৪১ হাজার ৫০০ ভোট৷ এই আসনে ছালাম-বিজয় ছাড়াও নির্বাচনের মাঠে ছিলেন আরও ৮ প্রার্থী।

চট্টগ্রাম-৯ (কোতোয়ালি) আসনে দ্বিতীয়বারের মত বিজয়ী হয়েছেন শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল। তিনি পেয়েছেন ১ লাখ ৩০ হাজার ৯৯৩ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী জাতীয় পার্টির লাঙ্গল প্রতীকের প্রার্থী সনজিদ রশিদ চৌধুরী পেয়েছেন ১ হাজার ৯৮২ ভোট।

চট্টগ্রাম-১০ (ডবলমুরিং-পাঁচলাইশ) আসনে ৫৯ হাজার ২৪ ভোট পেয়ে হ্যাভিওয়েট প্রার্থী সাবেক মেয়র মনজুর আলমকে হারিয়ে বিজয়ী হয়েছেন আওয়ামী লীগের মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মহিউদ্দিন বাচ্চু। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ফুলকপি প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী মনজুর আলম পেয়েছেন ৩৯ হাজার ৫৩৫ ভোট। এই আসনে এই দুই প্রার্থী ছাড়াও ভোটের মাঠে ছিলেন আরও

চট্টগ্রাম-১১ (বন্দর) আসনে ৫১ হাজার ৪৯৪ ভোট পেয়ে টানা চতুর্থ বারের মত সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন এম এ লতিফ। এই আসনে তুমুল প্রতিদ্বন্দ্বীতার আবাস থাকলেও ৪ হাজার ৯৬৯ ভোটে হেরেছেন হ্যাভিওয়েট স্বতন্ত্র প্রার্থী জিয়াউল হক সুমন। তিনি পেয়েছেন ৪৬ হাজার ৫২৫ ভোট। এই আসন থেকে ভোটের মাঠে ছিলেন আরও ৫ জন।

চট্টগ্রাম-১২ (পটিয়া) আসনে ১ লাখ ২০ হাজার ৩১৩ ভোট পেয়ে প্রথমবারের মত সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগের মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মোতাহেরুল ইসলাম। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ঈগল প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী বর্তমান সংসদ সদস্য শামসুল হক চৌধুরী পেয়েছেন ৩৫ হাজার ২৪০ ভোট।

চট্টগ্রাম-১৩ (আনেয়ারা-কর্ণফুলী) আসনে ৬০ হাজার ৭৯ ভোট পেয়ে চতুর্থবারের মত বিজয়ী হয়েছেন ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ইসলামি ফ্রন্টের মোমবাতি প্রতীকের প্রার্থী মাস্টার আবুল হোসেন পেয়েছেন ১ হাজার ৬৬১ ভোট।

চট্টগ্রাম-১৪ (চন্দনাইশ) আসনে ৭১ হাজার ১২৫ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছে বর্তমান সংসদ সদস্য আওয়ামী লীগের মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মো. নজরুল ইসলাম। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ট্রাক প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. আব্দুল জাব্বার পেয়েছেন ৩৬ হাজার ৮৮৪ ভোট।

চট্টগ্রাম-১৫ (সাতকানিয়া-লোহাগাড়া) আসনে হ্যাভিওয়েট প্রার্থী টানা দুইবারের সংসদ সদস্য আবু রেজা মোহাম্মদ নেজামুদ্দিন নদভীকে হারিয়ে প্রথমবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন ঈগল প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী আব্দুল মোতালেব। তিনি পেয়েছেন ৮৫ হাজার ৬২৪ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আবু রেজা মোহাম্মদ নেজামুদ্দিন নদভী পেয়েছেন ৩৯ হাজার ২৫২ ভোট।

চট্টগ্রাম-১৬ (বাঁশখালী) আসনে বিপুল ভোটে জয়ী হয়েছেন ঈগল প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী মুজিবুর রহমান। তিনি পেয়েছেন ৫৭ হাজার ৪৯৯ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আরেক স্বতন্ত্র প্রার্থী আব্দুল্লাহ কবির লিটন পেয়েছেন ৩২ হাজার ২২০ ভোট। নির্বাচন চলাকালীন এই আসনে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে ধমকানোর অভিযোগে প্রার্থীতা হারান আওয়ামী লীগের মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মোস্তাফিজুর রহমান। এতে তার ভোট বাতিল হিসেবে গন্য হওয়ায় এই আসনে মোট বাতিল ভোটের সংখ্যা দাড়ায় ৩৬ হাজার ৯৬৮ টি।

আজকের সারাদেশ/এএইচ

সর্বশেষ সংবাদ

তিনটি ফুটবল মাঠের সমান বিশ্বের সবচেয়ে বড় সাবমেরিনের মালিক রাশিয়া

এভারকেয়ার হসপিটাল শিশু হৃদরোগ বিভাগের আয়োজনে ফ্রি হেলথ ক্যাম্প

২ লিটারের বেশি পানি না নিতে নোটিশ দিল চবির শেখ হাসিনা হলের প্রভোস্ট

উপজেলা নির্বাচন: হাটহাজারিতে ২ পক্ষের সংঘর্ষ

২৬ মে আঘাত হানতে পারে ঘূর্ণিঝড় ‘রেমাল’, ব্যাপক বৃষ্টিপাতের শঙ্কা

ইসরায়েলের যুদ্ধ সরঞ্জাম বহনকারী জাহাজ বন্দরে ভিড়তে দেয়নি স্পেন

রাইসিকে ‘তেহরানের জল্লাদ’ বললেন ইহুদি নেতা, উচ্ছ্বাসের ঝড়

শাহ আমানত বিমানবন্দরে তথ্য কর্ণার চালু

শততম জাহাজে উড়তে যাচ্ছে লাল-সবুজের পতাকা

রাইসিসহ বিধ্বস্ত হেলিকপ্টারটি যুক্তরাষ্ট্রের তৈরি