রাত ৮:২৪, সোমবার, ১০ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সাকিবের রংপুরকে হারাল তামিমের বরিশাল

সাকিবের রংপুরকে হারাল তামিমের বরিশাল

আজকের সারাদেশ প্রতিবেদন:

তামিম-সাকিবের মুখোমুখি লড়াইকে ঘিরে মিরপুরে বিপিএলের তৃতীয় ম্যাচকে ঘিরে ছিল বাড়তি উন্মাদনা। দুজনের দ্বৈরথ দেখার প্রত্যাশায় গ্যালারিতে ঢল নেমেছিল দর্শকের। তবে এবার মাঠের লড়াইয়ে জিতলেন তামিম ইকবাল খান। তামিমের ফরচুন বরিশালের বিপক্ষে নিজেদের সেভাবে মেলে ধরতে পারেনি সাকিবের রংপুর রাইডার্স। আগে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৯ উইকেট হারিয়ে ১৩৪ রান সংগ্রহ করে রংপুর। শেষ পর্যন্ত ৫ উইকেটের সহজ জয় পায় তামিমের বরিশাল।

শনিবার (২০ জানুয়ারি) টসে হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুতেই বড় ধাক্কা খায় রংপুর। ইনিংসের প্রথম বলেই উইকেট তুলে নেন মোহাম্মদ ইরফান। খালেদ আহমেদ ও মেহেদী মিরাজদের বোলিং তোপে নির্ধারিত ২০ ওভার শেষে ৯ উইকেট হারিয়ে মোটে ১৩৪ রান সংগ্রহ করে রংপুর। জবাবে ১৯.১ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে জয় তুলে নেয় বরিশাল। 

দলীয় ৩১ রানের মধ্যেই ৪ উইকেট হারায় সাকিবের দল। প্রথম বলে উইকেট হারালেও পরের ৫ বলে ১৩ রান তুলে পরিস্থিতি সামলে নেওয়ার চেষ্টা চালায় রংপুর। এরপর অধিনায়ক নুরুল হাসান সোহান ও শামিম পাটোয়ারি মিলে শুরুর ধাক্কা সামাল দেওয়ার চেষ্টা করেন। তবে দলীয় ৬৫ রানে অধিনায়ক সোহান আউট হলে ভেঙে যায় এই জুটি। ২৩ বলে ২৩ রান করে সাজঘরে ফিরেন সোহান।

এরপর নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারাতে থাকে রংপুর। শেষ পর্যন্ত মেহেদি হাসান ও শামিমের ব্যাটে নির্ধারিত ২০ ওভার শেষে ৯ উইকেট হারিয়ে ১৩৪ রান সংগ্রহ করে রংপুর। শামিম ৩৩ বলে ৩৪ ও মেহেদি ১৯ বলে ২৯ রান করেন। বরিশালের হয়ে বল হাতে খালেদ আহমেদ নেন সর্বোচ্চ ৪ উইকেট।

১৩৫ রানের সহজ লক্ষ্যমাত্রা তাড়া করতে নেমে ঝোড়ো সূচনা পায় বরিশাল। ৫ চার ও এক ছক্কায় ২৪ বলে ৩৫ রান করেন তামিম ইকবাল। আরেক ওপেনার ইব্রাহিম জাদরানকে ১২ রানে শিকার করেন সাকিব আল হাসান। দলীয় ৬৭ রানের মাথায় মাত্র ১ রানে সাজঘরে ফেরেন সৌম্য সরকার। তামিম ও সৌম্য দ্রুত ফিরলে মুশফিকুর রহিমের সঙ্গে ২৭ রানের জুটি গড়েন মেহেদি হাসান মিরাজ।

দলীয় ৯৪ রানের মাথায় হাসান মুরাদকে স্লগ সুইপে ছক্কা হাঁকাতে গিয়ে ক্যাচ আউট হন মিরাজ। ১৮ বলে ২০ রান করে আউট হন এই অলরাউন্ডার। ১১৩ রানের সময় সাকিবকে চার মারতে গিয়ে বোল্ড হয়ে ফিরে যান মুশফিকও। তবে বরিশালের বাকি পথটুক পাড়ি দেন দুই অলরাউন্ডার শোয়েব মালিক ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ।

শেষ ওভারে জয়ের জন্য ৩ রান দরকার ছিল বরিশালের। প্রথম বলেই মাহমুদউল্লাহর ছক্কায়  জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় ফরচুন বরিশাল। ১১ বলে ২ ছক্কায় ১৯ রানে মাহমুদউল্লাহ এবং ১৭ রানে অপরাজিত থাকেন শোয়েব মালিক। সাকিব ও হাসান মুরাদ প্রত্যেকে ২টি করে উইকেট শিকার করেন।

এই ম্যাচের মধ্য দিয়েই লম্বা সময় পর প্রতিযোগিতামূলক ক্রিকেটে ফিরেছেন তামিম। সাকিবও প্রথম ম্যাচ খেললেন বিশ্বকাপের পর। বিশ্বকাপ থেকে তিনিও ভুগছিলেন আঙুলের চোটে। ছিলেন না নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ঘরে এবং ঘরের বাইরের দুই সিরিজে।

আজকের সারাদেশ/এমএইচ

সর্বশেষ সংবাদ