সকাল ৭:৪৪, রবিবার, ৯ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মাঘের শীতেও সবজির বাজারে উত্তাপ, কারণ জানালেন আড়তদাররা

হাবীব আরাফাত, চট্টগ্রাম
শীত মৌসুম শুরু হতেই বাংলাদেশের বাজারে আসে নানান সবজি। শীতকালীন এসব সবজির দামও থাকে ক্রেতাদের হাতের নাগালে। বলা হয়ে থাকে মাঘের শীতে বাঘ কাঁপে, সেই বাঘ কাঁপানো মাঘের শীত চলছে এখন দেশীয় ঋতুতে। প্রতিবারের মত এবারও কাঁচা বাজারে হরেক রকম সবজির ডালা সাজিয়ে বসেছেন বিক্রেতারা। তবে চিরাচরিত দাম কম থাকার সেই রীতি অনেকটাই বদলে গেছে এবার। শীত ঋতু প্রায় শেষের দিকে হলেও খুচরা বাজারে এখনও ৬০ এর ঘরেই অধিকাংশ সবজি।

এর কারণ হিসেবে পাইকারী বিক্রেতারা বলছেন, স্বাভাবিকের চেয়ে সবজির উৎপাদন কম এবার। তাছাড়া স্থানীয় কৃষকদের উৎপাদিত সবজিও বাজারে আসছে দেরীতে। পাইকারী বাজারে অধিকাংশ সবজি ৩০ থেকে ৪০ টাকা দরে বিক্রি হলেও পরিবহন ও সংরক্ষণ খরচ যোগ হয়ে খুচরা বাজারে তা বেড়ে দাড়ায় ৫০ থেকে ৬০ টাকায়।

শুক্রবার পাইকারী সবজি বিক্রির সবচেয়ে বড় বাজার ‘রিয়াজুদ্দিনবাজার’ ঘুরে দেখা যায় বাঁধাকপি, মূলা, ধনে পাতা, খিরা, পেঁয়াজ পাতা ও গাজর বিক্রি হচ্ছে কেজিপ্রতি ২৫ থেকে ৩৫ টাকায়। লাউ, ফুলকপি, কাঁচামরিচ, শসা, পেঁপে ও মিষ্টি কুমড়া বিক্রি হচ্ছে কেজিপ্রতি ৩৫ থেকে ৪০ টাকায়। সীম, টমেটো, বেগুন, চিচিঙ্গা ও বরবটি বিক্রি হচ্ছে কেজিপ্রতি ৪০ থেকে ৬০ টাকায়। ব্রকলি ও লেটুস পাতা বিক্রি হচ্ছে কেজিপ্রতি ৭০ টাকায়। তাছাড়া দেশী আলু আকার ভেদে কেজি ৪৫ থেকে ৭০ টাকা, ক্যাপসিকাম জাত ভেদে কেজি ১২০ থেকে ৪৩০ টাকা এবং খোসাসহ সীমের বিচি ১১০ থেকে ১৪০ টাকা ও খোসা ছাড়া ২০০ থেকে ২৪০ টাকা কিজেতে বিক্রি হচ্ছে।

খুচরা বিক্রেতাদের দাবি, পাইকারী বাজার থেকে সবজি কিনে ক্রেতাদের হাতে পৌঁছাতে কয়েক ধাপে বাড়তি খরচ গুনতে হয় তাদের। এতে ব্যয় পুষিয়ে মুনাফা লাভের জন্য খুচরা বাজারে প্রতিটি সবজির মূল্য পাইকারীর চেয়ে ১৫ থেকে ২০ টাকা দরে বিক্রি করতে হয়।

রিয়াজুদ্দিন বাজারে পাইকারী সবজি কিনতে আসা চকবাজার কাঁচাবাজারের বিক্রেতা জসীম উদ্দিন বলেন, ‘প্রতি শীতে সবগুলো সবজির পাইকারি দাম থাকতো ২০ থেকে ২৫ টাকার মধ্যে, কিন্তু এবার দাম অনেক বেশি। এখানে সরু গলি হওয়ায় বড় গাড়ি ঢুকানো যায় না, তাই শ্রমিক দিয়ে এনে মূল সড়কে গাড়ি রেখে লোড করতে হয়। এর বাইরে পরিবহন আর সংরক্ষণ খরচও আছে। সব মিলিয়ে আমাদের গড়ে ১৫ থেকে ২০ টাকা বাড়তি খরচ হয়ে যায়। তাই খুচরা বাজারে বেশি দামে বিক্রি করতে হয়।’

পাইকারী বাজারে সবজির বাড়তি দামের কারণ হিসেবে আড়তদাররা বলছেন, হেমন্তে বৃষ্টি হওয়ায় অনেক সবজি মাঠেই নষ্ট হয়ে গেছে। এতে এবার উৎপাদন হয়েছে তুলনামূলক কম। এর প্রভাবই পড়ছে বাজারে। রিয়াজউদ্দিন বাজার আড়তদার কল্যাণ সমিতির সভাপতি ও মের্সাস ময়নামতি ট্রেডার্সের মালিক রশীদ আহমেদ বলেন, ‘শীতের আগে বৃষ্টি হয়েছিল এদিকে। এই বৃষ্টিতে অনেক সবজি নষ্ট হয়ে গেছে। তাই উৎপাদন অনেক কম এবার। বাজারে চাহিদার চেয়ে উৎপাদন কম থাকলে দাম কম থাকে। এখন যেহেতু উৎপাদনের চেয়ে চাহিদা বেশি, তাই দামও একটু বেশি।

তবে উৎপাদন কম হওয়ার পাশাপাশি এবার চট্টগ্রামের স্থানীয় কৃষকদের সবজি দেরীতে বাজারে আসছে বলে জানান নিউ দয়াল ভাণ্ডার আড়তের মালিক হারুনর রশীদ। তার ভাষ্য, ‘উৎপাদন তো স্বাভাবিকের চেয়ে কমই। তবে এবার বন্যাসহ নানা কারণে স্থানীয় কৃষকরা সবজি ফলিয়েছেন অনেকটা দেরীতে। তাই শীত প্রায় শেষের দিকে হলেও এখনও স্থানীয় কৃষকদের সবজি পুরোদমে বাজারে আসেনি, এখন আসতেছে ধীরে ধীরে।’

শীতের একেবারে শেষ দিকে স্থানীয় কৃষকদের সবজি বাজারে এলে দাম আরও কমতে পারে বলে দাবি রিয়াজুদ্দিন বাজার আড়তদার কল্যাণ সমিতির সাধারণ সম্পাদক ও মেরাজ বাণিজ্যালয়ের মালিক ফারুক শিবলীর। তিনি বলেন, ‘এখন সরাবারহ কম। উত্তর চট্টগ্রাম ও দক্ষিণ চট্টগ্রামের কৃষকদের সবজি মাত্র আসা শুরু হয়েছে, তাদের সবজি পুরোদমে আসলে দাম কিছুটা কমবে।’

এদিকে রোজার আগে দাম বাড়ছে মাছ-মাংসের। কিছু মাছের দাম অপরিবর্তিত থাকলেও এক সপ্তাহের ব্যবধানে তেলাপিয়া, রুই, মৃগেল ও রুপচাঁদা মাছের দাম বেড়েছে ২০ থেকে ১০০ টাকা পর্যন্ত। এইদিন নগরীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে চাপিলা কেজিপ্রতি ১৫০ টাকা, কৈ ২৩০ টাকা কেজি, পোয়া মাছ ২৪০ টাকা কেজি, চইক্কে মাছ ১৬০ টাকা কেজি, স্যালমন বা তাইল্যে মাছ ৬৫০ টাকা কেজি, গ্রাস কার্প ২০০ টাকা কেজি এবং ব্রিকেট ১৮০ টাকা কেজিতে বিক্রি করতে দেখা গেছে। এসব মাছ গত সপ্তাহেও প্রায় একই দামে বিক্রি হয়েছিল। এছাড়াও তেলাপিয়া মাছ বিক্রি হচ্ছে কেজি প্রতি ২০০ থেকে ২১০ টাকা, যা গত সপ্তাহের চেয়ে ২০ থেকে ৩০ টাকা বেশি। রুই মাছ বিক্রি হচ্ছে আকার ভেদে ২৬০ থেকে ৩৬০ টাকা কেজিতে, যা গত সপ্তাহের চেয়ে ৪০ থেকে ৬০ টাকা বেশি। মৃগেল মাছ বিক্রি হচ্ছে ২৬০ টাকায় যা গত সপ্তাহে ছিল ২৪০ টাকা কেজি। রুপচাঁদা মাছ বিক্রি হচ্ছে ৩০০ থেকে ৪০০ টাকা দামে, যা গত সপ্তাহের চেয়ে অন্তত ৫০ টাকা বেশি।

এক সপ্তাহের ব্যবধানে জাত ভেদে মুরগীর দাম বেড়েছে ১০ থেকে ৫০ টাকা। শুক্রবার নগরীর বিভিন্ন বাজারে দেশি মুরগী বিক্রি হয়েছে কেজিপ্রতি ৫৫০ টাকায়, সোনালি মুরগী কেজিপ্রতি ২৮০ থেকে ২৯০ টাকায় এবং ব্রয়লার মুরগী কেজিপ্রতি ১৮০ টাকায়। এরমধ্যে এক সপ্তাহের ব্যবধানে দেশী মুরগীর দাম বেড়েছে কেজিপ্রতি অন্তত ৫০ টাকা এবং ব্রয়লার মুরগীর দাম বেড়েছে ১০ টাকা কেজিপ্রতি।

তবে অপরিবর্তিত রয়েছে গরু ও ছাগলের মাংসের দাম। নগরীর বিভিন্ন বাজারে বৃহস্পতিবার গরুর মাংস ৮০০ থেকে ৯০০ টাকা কেজিপ্রতি এবং ছাগলের মাংস ১ হাজার থেকে ১ হাজার ১০০ টাকা কেজিপ্রতি বিক্রি হয়েছে। #

আজকের সারাদেশ/২৬ জানুয়ারি/এএইচ