ভোর ৫:০০, মঙ্গলবার, ৪ঠা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

চট্টগ্রাম-বরিশালের শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচে জিতল চট্টগ্রাম

চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স

আজকের সারাদেশ প্রতিবেদন:

এবার বিপিএলে প্রথম ইনিংসে সর্বোচ্চ রানের ম্যাচ হলো চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স এবং ফরচুন বরিশালের মধ্যেআভিস্কা ফার্নান্দোর দারুণ ইনিংসের পর শেষদিকে চট্টগ্রামের হয়ে ঝড় তোলেন কার্টিস ক্যাম্পার। এদিকে ফরচুন বরিশাল ভালো শুরু পেলেও শেষপর্যন্ত ম্যাচ জিততে পারেনি।

সিলেটে বিপিএলের ম্যাচে ফরচুন বরিশালকে ১০ রানে হারিয়েছে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স। শুরুতে ব্যাট করতে নেমে ৪ উইকেট হারিয়ে ১৯৩ রান করে বরিশাল। জবাবে ১৮৩ রানের বেশি করতে পারেনি বরিশাল।

টস জিতে শুরুতে বোলিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয় বরিশাল। প্রথম ওভারেই তাইজুল ইসলামকে বল দেন তামিম ইকবাল। প্রথম বল ডট দিলেও পরে বাউন্ডারি হাঁকানোর হ্যাটট্রিক করেন এই ব্যাটার। কিন্তু এরপর স্লগ সুইপ করে ছক্কা হাঁকাতে গিয়ে স্কয়ার লেগে দুনিথ ভেল্লালগের হাতে ক্যাচ দেন তানজিদ হাসান। ৫ বলে ১২ রান করেন তিনি।  

তৃতীয় ওভারে এসে তাইজুল উইকেট নেন আরও একটি। এবার ৮ বলে ৪ রান করা ইমরানুজ্জামানকে ফেরান তিনি। আভিস্কা ফার্নান্দোর পরের জুটিতে সঙ্গী হন শাহাদাৎ হোসেন দীপু। ৫৫ বলে লঙ্কান ওপেনারের ব্যাট থেকে আসে ৭০ রান। অপরপ্রান্তে ২৯ বলে ৩১ রান করে ফেরেন শাহাদাৎ।  

সঙ্গী বদলালেও আভিস্কা ফার্নান্দোর রূপ বদলায়ানি। শুরুতে কিছুটা দেখে খেললেও পরে সময়ের সঙ্গে রানের গতি বাড়ান তিনি। নাজিবউল্লাহর সঙ্গে ৩৭ বলে ৬৮ রানের জুটিতে ১৯ বলে ৪৭ রান আসে আভিস্কার ব্যাট থেকে। নাজিবউল্লাহ ফেরার পর কার্টিস ক্যাম্পার এসে ঝড় তোলেন।  

৯ বলে ২৯ রান আসে তার ব্যাট থেকে। সেঞ্চুরি থেকে ৯ রান দূরে থাকা আভিস্কা খেলেন ৫০ বল, ৫ চার ও ৭ ছক্কা আসে তার ব্যাট থেকে। ৪ ওভারে ২৬ রান নিয়ে দুই উইকেট নেন তাইজুল ইসলাম, একটি করে উইকেট পান কামরুল ইসলাম ও ইয়ানিক ক্যারিয়াহ।  

ব্যাটের মতো বল হাতেও সফল হন ক্যাম্পার। রান তাড়ায় নেমে অবশ্য শুরুটা ভালো হয়েছিল বরিশালের। পাওয়ার প্লের ছয় ওভারে তারা তোলে ৬০ রান। যদিও একপ্রান্তে ঝড় তোলা আহমেদ শেহজাদ আউট হয়ে যান ১৭ বলে ৩৯ রান করে।  

আরেক ওপেনার তামিম শুরু থেকেই রানের গতির সঙ্গে পাল্লা দিতে পারছিলেন না। তিনি ক্যাম্পারের বল আভিস্কা ফার্নান্দোর হাতে ক্যাচ দেন ৩০ বলে ৩৩ রান করে।  

তার ফেরার দুই বল পরই সৌম্য সরকারও আউট হয়ে যান ১৬ বলে ১৭ রান করে। এরপর অনেকটা একাই লড়ছিলেন মেহেদী হাসান মিরাজ। কিন্তু ১৬ বলে ৩৫ রান করে আল আমিন হোসেনের বলে তার দুর্দান্ত ক্যাচ নেন ক্যাম্পার। এরপরই কার্যত শেষ হয়ে যায় দলটির আশা।  

অনেক্ষণ ক্রিজে থাকলেও আহামরি কিছু করতে পারেননি মুশফিকুর রহিম। ২২ বলে ২৩ রান করেন তিনি। ৩ ওভারে স্রেফ ২০ রান দিয়ে ৪ উইকেট নেন ক্যাম্পার। দুই উইকেট পান বিলাল খান।

আজকের সারাদেশ/এমএইচ

সর্বশেষ সংবাদ

সিলেটে বন্যার পানিতে ভেসে গেল লাখো মানুষের ঈদ আনন্দ

এবার সেন্টমার্টিনের অদূরে দেখা গেল নৌবাহিনীর যুদ্ধজাহাজ

ঈদের জামাতে আচমকা পড়ে গেলেন আ জ ম নাছির, ধরে তুললেন নওফেল

বিশ্বকাপে ‘ডট বলের বিশ্বরেকর্ড’ তানজিম সাকিবের

বিশ্বকাপের রেকর্ড ভেঙে সুপার এইট নিশ্চিত করল বাংলাদেশ

মিয়ানমার সীমান্তে যেকোনো পরিস্থিতি মোকাবিলায় তৎপর থাকার নির্দেশ

২৪ মণ ওজনের ‘শান্ত’র দাম ৮ লাখ, কিনলেই ফ্রি ৩ মণের ‘অশান্ত’

ঈদের ছুটিতে মূল্যবান সম্পদ রেখে যেতে পারবেন থানায়: সিএমপি কমিশনার

চট্টগ্রামে সাড়ে ৩ লাখ কাঁচা চামড়া সংরক্ষণের প্রস্তুতি, মজুত রাখা হয়েছে ২১ হাজার টন লবণ

মাঝ নদীতে সন্তান প্রসব, মা-শিশুর আজীবন ভাড়া ফ্রি করল জাহাজ কর্তৃপক্ষ