সকাল ৮:১৬, রবিবার, ৯ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

চবির সেই বিভাগে আরও ২ শিক্ষকের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ

আজকের সারাদেশ প্রতিবেদন:

শিক্ষকের বিরুদ্ধে ছাত্রীকে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগের আলোচনার মধ্যেই চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) রসায়ন বিভাগের আরও দুই শিক্ষকের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ উঠেছে। অভিযোগের সত্যতা যাচাইয়ে ৬ সদস্যদের একটি কমিটি গঠন করেছে কর্তৃপক্ষ।

গতকাল বৃহস্পতিবার (১ ফেব্রুয়ারি) বিভাগের একাডেমিক কমিটির ৩৯০তম সভায় এ কমিটি গঠনের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বিভাগের সভাপতি।

এর আগে বুধবার ওই বিভাগের এক ছাত্রী একই বিভাগের এক শিক্ষকের বিরুদ্ধে উপাচার্যের নিকট ধর্ষণচেষ্টার লিখিত অভিযোগ দেন। পরে গতকাল বৃহস্পতিবার বিভাগের ছাত্রীরা আরও দুই শিক্ষকের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির লিখিত অভিযোগ দেন।

অভিযোগ পত্রে এক ছাত্রী উল্লেখ করেন, মাস্টার্সের লিখিত পরীক্ষার সময় অসদুপায় অবলম্বন করার কারণে একজন স্যার কর্তৃক আমাকে বরখাস্ত করা হয়। উক্ত কারণ প্রদর্শনপূর্বক পরীক্ষা কমিটির সভাপতি আমাকে তার রুমে একা ডেকে পাঠান। তার রুমে প্রবেশের পর স্যার রুমে বসার নির্দেশ দেন এবং আমি চেয়ারে বসার পর হঠাৎ করে পেছন দিকে স্যার আমার কাছে চলে আসেন এবং আমি ওনার নিশ্বাসের শব্দ শুনে চমকে উঠি। আমি চেয়ার থেকে ভয়ে উঠে চিৎকার করে কান্নাকাটি করে বেরিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করতে গিয়ে দেখি রুমের দরজা লক করা। তারপর তিনি আমাকে অনুরোধ করেন এভাবে কান্নাকাটিরত অবস্থায় বাইরে না যেতে। তারপর তিনি আমাকে কিছুক্ষণ বসিয়ে রাখেন কান্না থামানোর জন্য। পরে আমি কোনোভাবে স্বাভাবিক হয়ে রুম থেকে বের হই।

এই বিষয়ে জানতে অভিযুক্ত শিক্ষককে ফোন করলে মোবাইল বন্ধ পাওয়া যায়।

বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, একই বিভাগের ১ম বর্ষ থেকে মাস্টার্স পর্যন্ত সব বর্ষের শিক্ষার্থীদের পক্ষে বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থীর স্বাক্ষরে বিভাগের আরেক শিক্ষকের বিরুদ্ধে সভাপতি বরাবর লিখিত অভিযোগ দেওয়া হয়েছে। অভিযোগের মধ্যে রয়েছে, রাতে মোবাইলে কল করে বিরক্ত করা, ফেসবুকের পোস্টে বাজে কমেন্ট করা এবং বিভাগে কাউকে একা পেলে অশালীন কথাবার্তা বলা।

জানতে চাইলে অভিযুক্ত শিক্ষক বলেন, শিক্ষার্থীরা আমার ছেলে মেয়ের মতোই। অনেক সময় ফেসবুকে ফান করে কমেন্ট করেছি। হয়তো কমেন্ট তাদের মনপুত হয়নি। এছাড়া অন্য কিছু নয়।

বিভাগের সভাপতি বলেন, তিনজন শিক্ষকের বিরুদ্ধে শিক্ষার্থীরা আমাদের কাছে অভিযোগ দিয়েছেন। অভিযোগগুলোর সত্যতা যাচাইয়ে আমরা ফ্যাক্টস ফাইন্ডিং কমিটি গঠন করেছি। আমরা শিক্ষার্থীদের অভিযোগগুলো গুরুত্বের সঙ্গে দেখছি। এই বিষয়ের যাতে পুনরাবৃত্তি না হয় সেজন্য আমরা কাজ করছি।

আজকের সারাদেশ/এমএইচ