সকাল ৮:০৮, রবিবার, ৯ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

‘বৃহস্পতিবার মায়ের জন্য শাড়ি কিনলাম, কদিন পরেই তাঁকে কাফন পরাতে হলো’

আজকের সারাদেশ প্রতিবেদন:
সোমবার দুপুরে ছেলে মো. ইব্রাহিমের (২১) জন্য ডিম ভেজেছিলেন মা হোসনে আরা। ছোট বেলা থেকে ছেলে ডিম ছাড়া ভাত খান না। ছেলে এক বন্ধুকে ধার দেবে বলে আড়াই হাজার টাকা নিয়ে বের হয়েছেন। বাসা থেকে বের হয়ে সড়কে নামতে মিয়ানমার সীমান্ত থেকে ছোঁড়া মর্টার শেলের পড়ে বাড়ির রান্না ঘরে। সেখানে থাকা ইব্রাহিমের মা হোসনে আরার (৫৫) কোমরে মর্টার পড়ে গুরুতর আহত হন।


ঘটনাস্থলে বাড়িতে কাজ করা শ্রমিক রোহিঙ্গা বৃদ্ধ নবী হোসাইন (৬৫) মারা যান। আর হাসপাতালে নিতে নিতে হোসনে আরাও মারা যান।


বুধবার (৭ ফেব্রুয়ারি) সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মিয়ানমার সীমান্তবর্তী বাংলাদেশের বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ঘুমধুম ইউনিয়নের জলপাইতলী গ্রামের হোসনে আরার বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, স্বজনরা এখনো বিলাপ করছেন। ঘরের সামনে একটি চৌকিতে বসে বিলাপ করছিলেন নিহত হোসনে আরার ছোট ছেলে ইব্রাহিম।


মায়ের স্মৃতিচারণ করতে করতে কান্নায় ভেঙে পড়েন ইব্রাহিম। তিনি বলেন, “আমি ছোট বেলা থেকে মাছ-মাংস তেমন খাই না। প্রত্যেক বেলায় ডিম খাই। আমি যোহরের নামাজ পড়ে বাসায় এসে দেখি মা রান্না ঘরে কাজ করছিলেন। আমার জন্য ডিম ভেজেছেন। নামাজ পড়ে এসে মাকে নামাজ পড়তে বলায় মা বললেন, ‘আমার ছেলে মৌলভি হয়েছে’। তখন তিনি ডিম ভেজেছেন। খেতে বলেন। আমি জবাবে জানাই, ‘একজনকে টাকা ধার দিয়ে বাবাকে নিয়ে এসে ভাত খাব।'”

তিনি আরো বলেন, “বাসা বের হওয়ার আগে মাকে নামাজ পড়তে বলায় তিনি খুশী হয়ে আমার কপালে চুমু খেয়েছিলেন। সড়কে নামতেই বিস্ফোরণের আওয়াজ শুনি। এরপর বাসায় গিয়ে দেখি রান্না ঘরে ধোয়া। মায়ের কোমরে মর্টার শেল পড়েছে। আমার মা শেষ হয়ে গেলেন।”


নিহত রোহিঙ্গা বৃদ্ধ নবী হোসাইন এই বাড়িতে কাজ করেন ছয় বছরের বেশি সময় ধরে। রোহিঙ্গা ক্যাম্পের খাবার তিনি খেতে পারেন না। এজন্য এখানে কাজ নিয়েছেন। বাড়িতে যা রান্না হয় তিনি তা-ই খান। হোসনে আরাকে নিজের মেয়ের মতো স্নেহ করতেন নবী হোসাইন।
সোমবার দুপুর সোয়া ২টার দিকে বিস্ফোরণের সময় রান্নাঘরে তাকে ভাত খেতে দিচ্ছিলেন হোসনে আরা। মর্টার শেল পড়লে এই রোহিঙ্গা বৃদ্ধ ঘটনাস্থলে মারা যান।
জলপাইতলীর হোসনে আরার বাড়ির সামনে নাস্তার দোকান করেন স্বামী বাদশা মিয়া (৬৫)। এই দম্পতির দুই সন্তানের মধ্যে বড় ছেলে শফিউল আলম (৩১) টমটম চালাক। তার চার সন্তান আছে। ছোট ছেলে ইব্রাহিম দোকান পরিচালনায় সহযোগিতা করেন। তিনি মাত্র তিন মাস আগে বিয়ে করেছেন।

বড় ছেলে শফিউল আলম বলেন, “আমার মা অনেক পরিশ্রমী ছিলেন। একটি ছাগল, দুটি গরু, অর্ধশতাধিক মুরগি পালতেন। এছাড়া আড়াই খানি জমিতে মরিচ ও ধান চাষ করেছেন। কবুতর পালার শখ ছিল। ১১টি কবুতর আছে তার। সামনের কোরবানির ঈদের (ইদুল ফিতর) পর নতুন করে ঘর বাঁধার কথা ছিল। কিন্তু তিনি চলে গেলেন।”


মঙ্গলবার হোসনে আরার দাফন সম্পন্ন হয়। এরপর থেকে তার পরিবারের সদস্যরা বড় ছেলে শফিউলের শ্বশুর বাড়ি উখিয়ায় অবস্থান করছেন। গোলাগুলি কিছুটা কমায় বুধবার সকাল তারা বাড়ি ফিরেন। বাড়ি ফিরেই মায়ের স্মৃতিচারণ করতে করতে শোকে বিভোর হয়ে পড়েন।
মাথা আঁচড়ানোর পর চিরুনিতে থাকা চুলগুলো বাড়িটির রান্নাঘরের বাইরের অংশের বাঁশের খুঁটিতে জমিয়ে রাখার অভ্যাস ছিল হোসনে আরার। ছোট ছেলে ইব্রাহিম সেখান থেকে আধপাকা চুল হাতে নিয়ে কাঁদতে থাকেন।
রান্নাঘরের স্টিলের গ্লাসে বানানো ওইদিনের মরিচের ভর্তাও পড়ে আছে। সেগুলো দেখিয়ে ইব্রাহিম বিলাপ করতে করতে বলেন, “আমার বাবার মরিচ ভর্তা প্রিয় ছিল। মা সেদিন মরিচ ভর্তা ও রাইস কুকারে ভাত রান্না করেছিলেন। সব আগের মতো রয়ে গেছে। শুধু আমার মা নেই।”


তিনি আরো বলেন, “বৃহস্পতিবার মায়ের জন্য শাড়ি কিনে এনেছিলাম। মা অনেক খুশী হয়েছিলেন। এক আত্মীয়ের বাসায় বেড়াতে যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু মা আর ওই শাড়ি পরেননি। মঙ্গলবার সেই মাকে কাফন পরাতে হলো।’

আজকের সারাদেশ/একে