সকাল ৭:৪১, রবিবার, ৯ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বাংলাদেশের মানুষের জীবন ও ভূমি অরক্ষিত:  রিজভী

আজকের সারাদেশ প্রতিবেদন:

বাংলাদেশের মানুষের জীবন এবং ভূমি এখন অরক্ষিত বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। তিনি বলেছেন, ‘পার্শ্ববর্তী দেশ থেকে দলে দলে লোক এবং অস্ত্র বাংলাদেশে ঢুকছে। আর বাংলাদেশ সরকারের অভিসন্ধিপ্রসূত নীরবতা মূলত দেশের মানুষকে নতজানু করার এক গভীর চক্রান্ত।’

বৃহস্পতিবার রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন তিনি।

বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়িতে বাংলাদেশ-মিয়ানমার সীমান্ত অরক্ষিত হয়ে পড়েছে দাবি করে রিজভী বলেন, ‘সেখানে বাংলাদেশের নাগরিকরা চরম নিরাপত্তাহীনতায়। সীমান্ত এলাকায় নারী-পুরুষ কেউ নিরাপদ নয়। তাদের জীবন যাচ্ছে মর্টারের শেলে। বাংলাদেশের চারদিকে সীমান্ত এলাকায় এখন রক্তক্ষয়ী খেলা চলছে প্রতিবেশী দেশগুলোর ছোঁড়া অস্ত্রের আঘাতে।’

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের মানুষের জীবন এবং ভূমি এখন অরক্ষিত। প্রধানমন্ত্রীর শান্তির বাণী এখন দেশের সার্বভৌমত্বকে হুমকির মুখে ফেলেছে। অথচ জিয়াউর রহমান ও খালেদা জিয়ার শাসনামলে বাংলাদেশের সীমান্ত এলাকা ছিল সুরক্ষিত এবং জনগণ ছিল নিরাপদ।’

এখানেই বিএনপি এবং আওয়ামী লীগের মধ্যে পার্থক্য বলে মনে করেন রিজভী। বলেন, “বিএনপির কাছে অবৈধ ক্ষমতা নয়, জনগণের স্বার্থই বড়। এ কারণে বিএনপি ‘তলে তলে কিংবা প্রকাশ্যে’ কোনোভাবেই দেশ এবং জনগণের স্বার্থ জলাঞ্জলি দিয়ে কারও সঙ্গে আপস করেনি।

“আমি আগেও বলেছিলাম, ৭ই জানুয়ারি কোনো নির্বাচন ছিল না। ৭ জানুয়ারি ছিল ‘বিএনপির লিফলেট বনাম শেখ হাসিনার ডামি ব্যালটের’ লড়াই। দেশের শতকরা ৯৫ ভাগের বেশি মানুষ শেখ হাসিনার ব্যালট প্রত্যাখ্যান করে বিএনপিসহ গণতন্ত্রের পক্ষের ৬৩টি রাজনৈতিক দলের ‘লিফলেট’ গ্রহণ করে ৭ জানুয়ারির ভোট বর্জন করেছিল। সুতরাং, ওবায়দুল কাদের র‌্যাব-পুলিশের পাহারায় থেকে যত কথাই বলুক, আওয়ামী লীগ বরাবরই ‘তলে তলে আপস করা’ দেশ ও জনস্বার্থ বিরোধী একটি চক্র।”

এ সময় ওবায়দুল কাদেরের রাজনীতি নিয়ে বক্তব্য যাত্রাপালার সংলাপের ঢংয়ে সস্তা বিনোদনে ভরপুর মন্তব্য করে বিএনপির এ নেতা বলেন, ‘এই ভদ্রলোককে দেখলাম… বর্তমান বিনা ভোটের সরকারপ্রধানের কাছে লেখা যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বাইডেনের একটি চিঠি নিয়ে প্রায় হিতাহিত জ্ঞানশূন্য হয়ে পড়েছেন।

‘কাদের বিএনপির প্রতি প্রশ্ন রেখে বলেছেন, এখন আপনাদের সাহসের উৎস কোথায়? কে সাহায্য করবে?’

বিএনপির সব রাজনৈতিক ক্ষমতার উৎস দেশের জনগণ উল্লেখ করে রিজভীর জবাব, “গত অক্টোবরে ওবায়দুল কাদেরের একটি বক্তব্য নিশ্চয়ই সবার মনে আছে, ‘আপস হয়ে গেছে। আমরা আছি, দিল্লিও আছে। দিল্লি আছে, আমরাও আছি।’

“এই কথার অর্থ দেশের জনগণ নয়, আওয়ামী লীগের অস্তিত্ব টিকে আছে দিল্লির করুণার ওপর। আওয়ামী লীগের চিরায়ত ঐতিহ্য হচ্ছে নিজ দেশের সার্বভৌমত্বকে দুর্বল করা। বিএসএফের গুলিতে বিজিবি সদস্য মারা গেলেও আওয়ামী লীগের প্রতিবাদ করার সাহস নেই।”

বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব দাবি করেন, ‘২০২৪ সালের জানুয়ারি মাসে সারা দেশে কমপক্ষে ২৫৮টি নারী ও শিশু নির্যাতনের ঘটনা ঘটেছে। এর মধ্যে ধর্ষণের ঘটনা ৩১টি, সংঘবদ্ধ ধর্ষণ ১৪টি, দুটি ঘটনা যেখানে ধর্ষণের পর ধর্ষিতাকে হত্যা করা হয়েছে। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকলে কেউ নিরাপদ নয়। বর্তমান দুঃসময় সামাজিক নৈরাজ্যের চরম দৃষ্টান্ত। আর এর জন্য দায়ী দখলদার আওয়ামী সরকার।’

‘৭৫ সালের পর এবারের নির্বাচন সবচেয়ে অবাধ ও সুষ্ঠু হয়েছে’- প্রধানমন্ত্রীর এই বক্তব্য প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘দেশের জনগণ কর্তৃক প্রত্যাখাত নির্বাচনকে শুধুমাত্র ডামি সরকারের প্রধানমন্ত্রী ও তার মোসাহেবরা ৭ জানুয়ারি নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠু বলেছেন। শতাব্দীর শ্রেষ্ঠ তামাশা হচ্ছে ৭ জানুয়ারি ডামি নির্বাচন।’

আজকের সারাদেশ/০৮ফেব্রুয়ারি