রাত ১১:৩৪, শুক্রবার, ৩১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

‘উদ্ধারকারী জাহাজ দেখলেই নাবিকদের মাথায় অস্ত্র ধরে জলদস্যুরা’

আজকের সারাদেশ প্রতিবেদন:

মানসিকভাবে কিছুটা বিপর্যস্ত হলেও শারীরিকভাবে সুস্থ আছেন বলে জানিয়েছেন ভারত মহাসাগরে জলদস্যুদের কবলে পড়া বাংলাদেশের পতাকাবাহী জাহাজ এমভি আবদুল্লাহর প্রধান কর্মকর্তা আতিক উল্লাহ খান। বৃহস্পতিবার (১৪ মার্চ) বিকেলে ছোট ভাই আসিফ উল্লাহ খানের কাছে পাঠানো এক অডিও বার্তায় এই কথা বলেন এসব কথা বলেন।

দুটি উদ্ধারকারী জাহাজ যেখানে বাংলাদেশি জাহাজটির কাছে গিয়েছিল জানিয়ে আতিক উল্লাহ খান আরও বলেন, ‘গতকাল (বুধবার) একটা নেভি জাহাজ এসেছিল। আজও একটা নেভি জাহাজ এসেছিল। সবমিলিয়ে দুটি জাহাজ আমাদের উদ্ধার করতে চেয়েছিল। কিন্তু এটা তো সম্ভব না। কারণ তখন ওরা (জলদস্যুরা) আমাদের জিম্মি করে রাখে। আমাদের মাথায় অস্ত্র ধরে রাখে। এরকম পরিস্থিতি হলে (উদ্ধারকারী জাহাজ আসলে) ওরা আমাদের রেস্টিকটেড (একজায়গায় নিয়ে আসে) করে ফেলে।’

উদ্ধারকারী জাহাজগুলো সরঞ্জাম নিয়ে এসেছিল জানিয়ে আতিক উল্লাহ খান বলেন, ‘দুটি ফ্রিগেট (এক ধরনের যুদ্ধজাহাজ) এসেছিল বড় বড়। সব ইকুপমেন্ট নিয়ে। কিন্তু জলদস্যুরা এসবে ভয় পায় না। তখন ওরা আমাদের জিম্মি করে রাখে। আমাদের মাথায় গুলি ধরে রাখে।’

এখন পর্যন্ত জলদস্যুরা আঘাত করেনি বলে পরিবারকে আশ্বস্ত করেন আতিক উল্লাহ খান। বলেন, এখন পর্যন্ত আঘাত করেনি তবে যেটা সমস্যা আমি যেখানে ঘুমায় তার এক পাশে ঠিক আছে, কিন্তু আরেক পাশে ফিরলে দেখি আমার দেখি বড় বড় মেশিনগান ধরে আছে। এই অবস্থায় ঘুম যা হওয়ার হচ্ছে। আমরা ব্রিজে ঘুমাই, এরকম তো আমাদের অভ্যাস নেই। একটা ওয়াশরুম ব্যবহার করছি সবাই। তবুও সুস্থ থাকার চেষ্টা করছি।’

৩ মিনিট ১২ সেকেন্ডের এই বার্তায় আতিক উল্লাহ খানকে বারবার পরিবারকে আশ্বস্ত করতে দেখা গেছে। জলদস্যুদের সঙ্গে একটা ভালো সম্পর্ক হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আজকে আমরা সোমালিয়া আসলাম। ওদের সঙ্গে আমাদের একটা ভালো রিলেশন হয়েছে। বলে কয়ে আমরা একটু কেবিনে আসলাম। তবে হয়তো আবারও ব্রিজে চলে যেতে হবে। কথা হচ্ছে মানসিকভাবে আল্লাহ যতদিন শক্ত রাখে ততদিন থাকব। ব্রিজে বসে আমরা সবাই আল্লাহকে ডাকি, আল্লাহ হয়তো আমাদের ডাক শুনবেন।

সরকার ও জাহাজের মালিকপক্ষের পদক্ষেপে সন্তুষ্ট নাবিকেরা। তাই ঈদের আগেই পরিবারের কাছে ফেরত আসতে পারবেন বলে আশাবাদী আতিক উল্লাহ খান। তিনি বলেন, ‘সরকারও পদক্ষেপ নিচ্ছে। কোম্পানিও আল্লাহর রহমতে সজাগ আছে। বিশ্বমিডিয়াও আমাদের কথা বলতেছে। ইনশাআল্লাহ ঈদের আগে যেন আমরা যেন পরিবারের কাছে ফিরে যেতে পারি, সেটাই আমরা চাই আর কি। দোয়া কর আল্লাহ যেন কঠিন যাত্রাকে সহজ করে দেন।’

মোজাম্বিকের মাপুতু বন্দর থেকে সংযুক্ত আরব আমিরাতে যাওয়ার পথে মঙ্গলবার বাংলাদেশ সময় বেলা দেড়টায় জাহাজটিতে উঠে নিয়ন্ত্রণ নেয় সোমালিয়ার জলদস্যুরা। জাহাজটিতে ৫৫ হাজার টন কয়লা রয়েছে। জাহাজে থাকা ২৩ নাবিকের সবাই বাংলাদেশি। পরে জাহাজটিকে সোমালিয়ার উপকূলের দিকে নিয়ে যান জলদস্যুরা। বৃহস্পতিবার সেটি সোমালিয়া উপকূলে নোঙর করা হয়। বর্তমানে জাহাজটি উপকূল থেকে সাত নটিক্যাল মাইল দূরে আছে।

আজকের সারাদেশ/একে

সর্বশেষ সংবাদ

জাহাজে করে এক মাসের খাদ্যপণ্য যাচ্ছে সেন্টমার্টিনে

সুপার এইটে আফগানিস্তান, নিউজিল্যান্ডের বিদায়

চবিতে ঘুরতে এসে ছিনতাইকারীর রামদার আঘাতে মিলিটারি একাডেমি শিক্ষার্থী আহত

ময়নাতদন্তের জন্য চট্টগ্রামে ৪৫ দিন পর কবর থেকে তোলা হল লাশ

নেদারল্যান্ডসকে হারিয়ে সুপার এইটের দৌড়ে এগিয়ে  বাংলাদেশ

তবে কি আনার হত্যার নির্দেশদাতা ঝিনাইদহ আ.লীগ সম্পাদক মিন্টু!

বকেয়া বেতন ও ঈদ বোনাসের দাবিতে চট্টগ্রামে পোশাক শ্রমিকদের বিক্ষোভ

বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কার মধ্যে ফেরি চলাচল শুরু হতে যাচ্ছে

নৌযান চলাচল বন্ধ, সেন্ট মার্টিনে খাদ্যসংকট চরমে

১০ ক্যাটাগরিতে বাংলাদেশীদের ভিসা নিষেধাজ্ঞা তুলে নি‌য়েছে ওমান