রাত ১২:০৩, মঙ্গলবার, ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কেএনএফের হামলায় অশান্ত পাহাড়, ঘর থেকে বের হচ্ছে না মানুষ

আজকের সারাদেশ প্রতিবেদন:

পাহাড়ে নতুন করে অশান্তির বীজ বপন শুরু করেছে কুকি-চিন ন্যাশনাল ফ্রন্ট বা কেএনএফ। বর্তমানে পাহাড়ের নতুন আতঙ্কও সশস্ত্র গ্রুপটি। রুমায় সোনালী ব্যাংকে হামলা-ডাকাতি এবং ব্যবস্থাপক নেজাম উদ্দিনকে অপহরণের ঘটনাটি মঙ্গলবার রাতে প্রথম ভাগে ঘটলেও; থানচিতে কৃষি ও সোনালী ব্যাংকে হামলা হয়েছে ভরদুপুরে।

দুটি ঘটনাতেই পাহাড়ের সশস্ত্র সংগঠন কুকি-চিন ন্যাশনাল ফ্রন্ট-কেএনএফ এর নাম এসেছে; যারা পাহাড়ে ‘বম পার্টি’ নামে পরিচিত। তাদের একের পর এক হামলায় আবারও অশান্ত হয়ে উঠেছে পার্বত্য এ অঞ্চলটি।

এদিকে গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে বান্দরবানের থানচি থানা লক্ষ্য করে গুলির পর আলীকদম উপজেলায় পুলিশ ও সেনাদের একটি যৌথ তল্লাশি চৌকিতে ট্রাক নিয়ে হামলা চালায় সশস্ত্র গোষ্ঠী কেএনএফের সন্ত্রাসীরা। গতকাল গভীর রাতে ওই হামলা চালায় তারা। এ দুই হামলা ঠেকিয়ে দিয়েছে প্রশাসন। তবে দুটি ঘটনায় পুলিশসহ নিরাপত্তা বাহিনীর কেউ হতাহত হয়নি।

এদিকে এসব ঘটনায় পুরো বান্দরবানে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। বিশেষ করে রুমা, থানচি ও রোয়াংছড়ি উপজেলার মানুষ বেশি আতঙ্কে রয়েছে। প্রয়োজন ছাড়া কেউ ঘর থেকে বের হচ্ছে না। দোকানপাটে জনসমাগম কমে গেছে।

এ বিষয়ে বান্দরবানের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর) মো. শাহ আলম বলেন, সব জায়গায় নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই।

স্থানীয় ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সূত্র জানায়, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে সন্ত্রাসীরা থানচি থানা লক্ষ্য করে গুলিবর্ষণ শুরু করে। পুলিশও পাল্টা গুলি চালায়। এ সময় প্রায় ১০০ রাউন্ড গুলি ছোড়া হয়। সেখানে থানার পাশে পুলিশকে অ্যাকশনের ভূমিকায় দেখা গেছে। পাহাড়ের দিকে গুলি ছুড়ছে তারা। প্রায় এক ঘণ্টা ধরে পাল্টাপাল্টি গোলাগুলি চলে।

থানচি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জসীম উদ্দীন বলেন, ‘এখন পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। আমরা জানতে পেরেছি, সন্ত্রাসীরা থানার আশপাশে রয়েছে। এ জন্য আমরা সতর্ক অবস্থায় রয়েছি।’

আজ শুক্রবার সকালে বান্দরবান সদর থেকে থানচির দিকে গাড়ি কম চলাচল করতে দেখা গেছে। পারতপক্ষে কেউ থানচির দিকে যাচ্ছে না। সবার মধ্যে ভয় কাজ করছে। বান্দরবান সদর থেকে রুমা ও থানচি পর্যন্ত যৌথ বাহিনীর টহল জোরদার করা হয়েছে বলে প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে।

স্থানীয় এক সংবাদকর্মী জানান, গোলাগুলির পর পুরো থানচিতে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। থানার আশপাশের বাড়িঘরের মানুষ বাড়ি ছেড়ে নিরাপদ জঙ্গলে আশ্রয় নেয়। তবে গোলাগুলি থামার পর তারা আবার বাড়িতে চলে আসে।

রুমা উপজেলার সোনালি ব্যাংকের যে শাখায় কেএনএফ হামলা চালায়, সেটির পাশের দোকানি মো. আলমগীর বলেন, হামলার পর সবার মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে। দোকানে মানুষও কম আসছে। প্রয়োজন ছাড়া কেউ বের হচ্ছে না।

রুমা উপজেলা প্রশাসনের কর্মচারী মো. আবুল খায়ের বলেন, ‘৪০ বছর চাকরিজীবনে এ রকম পরিস্থিতি দেখিনি। সশস্ত্র হামলার পর সবার মধ্যে ভয় কাজ করছে। আমরা পাহাড়ে শান্তি চাই।’

এদিকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, বান্দরবানের রুমা ও থানচি উপজেলায় ব্যাংকে ডাকাতি, অস্ত্র লুট ও সোনালী ব্যাংক ম্যানেজারকে অপহরণের মতো ঘটনা যারা ঘটিয়েছে তাদের বিচার হবে, শাস্তি হবে। আমরা কঠোর শাস্তির ব্যবস্থা করবো।

আজকের সারাদেশ/একে