সকাল ৮:২৬, রবিবার, ৯ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

এভারেস্টের চূড়ায় ছেলে, প্রার্থনায় মা সেজদায়!

নিয়াজ উদ্দিন দিনার, চট্টগ্রাম

ছেলেমেয়েরা সবাই প্রতিষ্ঠিত। লুৎফুন্নাহার বেগমের সামনে তাই অফুরন্ত অবসর। ষাটোত্তীর্ণ এই নারীর অবকাশের বেশিরভাগই কাটে ঘুমিয়ে। দিনে অন্তত ১০-১২ ঘণ্টা ঘুমানো লুৎফুন্নাহারের নেশা। মায়ের সেই ‘কুম্ভকর্ণের ঘুম’ কিনা চোখ থেকে নাই হয়ে গেছে ছেলে বাবর আলী হিমালয়ের পথে পা বাড়াতেই। ছেলের এভারেস্ট জয়ের দিনেও তাই জায়নামাজে বসে এই মায়ের আকুল করা প্রার্থনা-‘আল্লাহ আপনি আমার ছেলেকে তার লক্ষ্যে পৌঁছে দিয়েছেন, এবার সুস্থভাবে আবার আমার বুকে ফিরিয়ে দিন।’

দীর্ঘ বিরতির পর ষষ্ঠ বাংলাদেশি হিসেবে বাবর আলীর এভারেস্ট চূড়ায় পা ফেলার দিন রোববার (১৯ মে) বিকেলে মা লুৎফুন্নাহার বেগমকে বাড়িতে পাওয়া গেল ঠিক এভাবেই। চট্টগ্রাম শহরের কাপ্তাই রাস্তার মাথা থেকে কয়েক কিলোমিটার উত্তরে গেলেই নজু মিয়া হাট। সেই হাটে গিয়ে বাবর আলীদের বাড়ি কোথায়-বললেই হলো। লোকেরাই দলবেঁধে পথ দেখাতে দেখাতে নিয়ে যাবে বুড়িশ্চর গ্রামে, এভারেস্টজয়ীর বাড়িতে। দুই তলা বাড়িতে ঢুকতেই যেন এভারেস্টের ছোঁয়া পাওয়া গেল! বাড়ির দেয়ালে দেয়ালে ঝুলছে বাবর আলীর পাহাড়ের বুকে দাঁড়িয়ে তোলা ছবি, কোথাওবা তাঁর অর্জনের পদক! বাবরের একটা বাধাই করা ছবি বুকে নিয়ে মা-বাবা ছেলেকে নিয়ে খুলে দিলেন স্মৃতির জানালা।

ছেলে এভারেস্টের চূড়ায়, খুশিতে নিশ্চয় আপনিও আকাশ ছুঁয়েছেন-এমন প্রশ্নে ছেলেকে ঘিরে দুশ্চিন্তাগ্রস্ত মা লুৎফুন্নাহার একটু হাসলেন। বললেন, ‘আল্লাহ আমার ছেলেকে তার লক্ষ্যে পৌঁছে দিয়েছেন। সেজন্য আনন্দ লাগছে অবশ্যই।’ এরপর ‘কিন্তু আমি তো মা’ বলে একটু থামলেন লুৎফুন্নাহার। নাতিদীর্ঘ বিরতি নিয়ে ভয়-শঙ্কা মেশানো কণ্ঠে বলতে শুরু করেন, ‘সবসময় টেনশনে ছিলাম। এখনও আছি। আমি এমনিতেই খুবই ঘুমপাগল। দিনে ১০-১২ ঘন্টা ঘুমাতাম। কিন্তু যখন থেকে বাবর এভারেস্টের দিকে যাত্রা করল, ঘুম আমার চোখ থেকে চলে গেছে। গত দেড় মাসে মনে হয় দিনে আমি দুই ঘন্টাও ঘুমাতে পারিনি। ঘুমাতে গেলেও ছেলের টেনশনে ঘুম ভেঙে যায়। নামাজ পড়ে বারবার আল্লাহকে বলছি-আপনি আমার ছেলেকে সুস্থভাবে আবার আমার কাছে ফিরিয়ে দেন। যতক্ষণ পর্যন্ত সে পাহাড় থেকে নেমে আসবে না, ততক্ষণ আমার টেনশন যাবে না।’

পাশে বসে স্ত্রীকে নির্ভার রাখার চেষ্টা করে যাচ্ছেন বাবর আলীর বাবা লেয়াকত আলী। বলেন, ‘ছেলের খুব শখ ছিল একদিন এভারেস্ট জয় করবে। সে তার স্বপ্ন ছুঁয়েছে। তবে খুব সহজে আসেনি তার এই অর্জন। ধীরে ধীরে সে স্বপ্ন পূরণের পথে এগিয়ে গেছে। ছেলের এমন গৌরবের দিনে বাবা হিসেবে অবশ্যই খুব ভালো লাগছে। এটা আমার জন্য খুবই আনন্দের, খুশির।’

বাবর আলীর পরিবারের এলাকায় বেশ নাম যশ আছে। তাঁর বাবা লেয়াকত আলী কুয়েত প্রবাসী ছিলেন। ২০১৭ সালে দেশে ফিরে বর্তমানে অবসর জীবনযাপন করছেন। স্বামী দূরের প্রবাসে থাকলেও ছেলে-মেয়েদের বকে যেতে দেননি মা লুৎফুন্নাহার বেগম। গৃহিণী এই মা তাঁর চার সন্তানকেই করেছেন মানুষের মতো মানুষ! তিন ভাই, এক বোনের মধ্যে বাবর দ্বিতীয়। তাঁর বড় ভাই ব্যারিস্টার, থাকেন অস্ট্রেলিয়ায়। বাড়ির দ্বিতীয়জন বাবর আলী চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ থেকে এমবিবিএস ডিগ্রি অর্জন করে চিকিৎসাসেবায় নেমেছিলেন। পাশাপাশি চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে জনস্বাস্থ্য বিষয়ে এমফিল ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পিজিটি সম্পন্ন করেছেন। একমাত্র বোনও সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে কক্সবাজার জেলা আদালতে কর্মরত আছেন। সবার ছোট ভাই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিষয়ে স্নাতকোত্তর শেষে বিকাশের মার্চেন্ট ডেভেলপমেন্ট এক্সিকিউটিভ অফিসার হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

বাবর আলী ছোটবেলা থেকে একদিকে যেমন দুর্দান্ত মেধাবী, তেমনি আবার দূরন্তপনায়ও এগিয়ে। ছেলের এভারেস্ট জয়ের দিন বাবা লেয়াকত আলীর স্মৃতিতে ফের ফিরল ছেলের সেই ছোটবেলা, ‘ছোটবেলা থেকেই ও  খুব দূরন্ত ছিল। আবার লেখাপড়ায়ও ভালো ছিল। খেলাধূলার সব ইভেন্টে বলতে গেলে তার অংশগ্রহণ থাকতো। আমার সন্তানদের মধ্যে সে একটু বেশিই অসামান্য।’

ছেলেকে নিয়ে গর্ব খেলা করে মা লুৎফুন্নাহার বেগমের চোখেমুখেও। বললেন, ‘আমার ছেলে লেখাপড়ায় ভালো ছিল, চিকিৎসব হিসেবেও বেশ সুনাম করেছিল। খারাপ কোনো নেশায় জড়ায়নি কখনো। তাঁর নেশা শুধু একটাই, পাহাড়-পর্বতে ঘোরাঘুরি।’

রোববার বাংলাদেশ সময় পৌনে নয়টায় এভারেস্টের চূড়ায় বাংলাদেশের লাল-সবুজ পতাকা উড়ান বাবর আলী। অবশ্য হিমালয়ের সর্বোচ্চ শৃঙ্গে উঠতে বাবর দেশ থেকে নেপালের উদ্দেশে রওয়ানা হয়েছিলেন ১ এপ্রিল। প্রস্তুতিমূলক কাজ শেষ করে তিন দিন পর ৪ এপ্রিল কাঠমান্ডু হতে উড়ে যান পৃথিবীর অন্যতম বিপজ্জনক বিমানবন্দর লুকলাতে। সেই লুকলা থেকেই মূলত শুরু হয় এভারেস্ট জয়ের পথ। শত কিংবদন্তি পর্বতারোহীদের চলা পথে ১০ এপ্রিল বাবর পৌঁছে যান এভারেস্ট বেসক্যাম্পে। একাধিকবার উচ্চতায় উঠানামা করে উচ্চতার সঙ্গে খাপ খাইয়ে নেওয়া পর্ব চালিয়ে যান বাবর। কিন্তু কয়েকদিন অপেক্ষার পরও নেপালের দায়িত্বরত দল পথ তৈরি করতে পারেনি। তাই বাবর বিকল্প পথ বেছে নেন, ১৬ এপ্রিল সামিট করেন ২০ হাজার ৭৫ ফুট উচ্চতার লবুচে ইস্ট পর্বত। এরপর আবারো বেসক্যাম্পে ফিরে পর্বতের নিচ অংশের পথ খুলে গেলে ২৬ এপ্রিল বেসক্যাম্প থেকে যাত্রা শুরু করে ক্যাম্প-২ পর্যন্ত ঘুরে এসে শেষ করেন উচ্চতার সঙ্গে মানিয়ে নেওয়ার পর্ব। এরপর শুরু হয় দীর্ঘ অপেক্ষা। ১৪ মে মাঝরাতে বেসক্যাম্প থেকে শুরু হয় বাবরের স্বপ্নের পথে যাত্রা। প্রথম দিনেই সরাসরি উঠে যান ক্যাম্প-২ এ, যার উচ্চতা ২১ হাজার ৩০০ ফুট। পরিকল্পনা অনুসারে সেখানে দুইরাত কাটিয়ে বাবর ধারাবাহিকভাবে উঠে আসেন ২৪ হাজার ৫০০ ফুট উচ্চতার ক্যাম্প-৩ এবং ক্যাম্প-৪ এ। ২৬ হাজার ফুট উচ্চতার এই ক্যাম্প-৪ এর ওপরের অংশকে বলা হয় ডেথ জোন। অবশেষে ১৮ মে মাঝরাতে আবারো শুরু হয় বাবরের যাত্রা। ভোরের প্রথম কিরণে ২৯ হাজার ৩১ ফুট উচ্চতার মাউন্ট এভারেস্টের চূড়ায় চুমু খায় বাবরের পা!

অভিযানের প্রধান সমন্বয়ক ফরহান জামান বাবর আলীর পুরো অভিযানের চিত্র তুলে ধরেন। বলেন, ‘অভিযান কিন্তু এখনো শেষ নয়! বাবরের আসল লক্ষ্য শুধু এভারেস্ট নয়, সঙ্গে লাগোয়া পৃথিবীর চতুর্থ শীর্ষ পর্বত লোৎসেও। এই লোৎসেতে ইতোপূর্বে কোনো বাংলাদেশি সামিট করেননি আর কোন বাংলাদেশি একই অভিযানে দুটি আট হাজারী শৃঙ্গ চড়েননি। তাই লক্ষ্য পূরণ হলে বাবর আলী করবেন এই বিপজ্জনক খেলায় বাংলাদেশের ইতিহাসের এক নতুন অধ্যায়ের সূচনা।’
 
কাগজে-কলমে বাবর আলীর এই অভিযান আজ থেকে দেড় মাস আগে শুরু হলেও তার কঠিন অধ্যাবসায় শুরু হয়েছিল এক দশক আগে, ২০১৪ সালে পর্বতারোহণ ক্লাব ভার্টিক্যাল ড্রিমার্স প্রতিষ্ঠার মধ্যে দিয়ে। এরপর থেকেই ক্লাব সতীর্থদের নিয়ে নেপাল এবং ভারতের বহু পর্বতে অভিযান করেছেন তিনি। প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে তিনি সামিট করেছেন নেপালের আমা দাবলাম পর্বত। পর্বতারোহণ তার নেশা হলেও সাইক্লিং, ম্যারাথন, স্কুবা ডাইভিং এর মতো এডভেঞ্চার একটিভিটিতেও নিয়মিত জড়িত ছিলেন। এডভেঞ্চারের তাড়নায় হেঁটে ঘুরেছেন দেশের ৬৪ জেলা, সাইকেলে পাড়ি দিয়েছেন ভারতের কাশ্মীর থেকে কন্যাকুমারীর পথ। বান্দরবান থেকে হিমালয়, সুন্দরবন থেকে দক্ষিণ ভারত, যে জনপদেই তিনি গেছেন, সাক্ষী হয়েছেন অভূতপূর্ব কিছু মুহূর্তের। প্রকৃতির প্রতি তার এই ভালোবাসা এবং বিস্ময় প্রতিনিয়তই মাত্রা ছাড়িয়ে গেছে। সেই সূত্র ধরেই অবশেষে পৃথিবীর সর্বোচ্চ চূড়া থেকে পৃথিবী দেখার স্বপ্নও সার্থক করেছেন এই তরুণ পর্বতারোহী।

ছেলের স্বপ্নপূরণের দিনে মা-বাবার দুশ্চিন্তাও যেন অনেকটাই কমেছে। এবার ঠিকঠাক ঘরে ফিরলে ছেলের মনকে মা-বাবা আটকে রাখতে চান চিকিৎসাসেবাতেই। দুই প্রবীণ একজোট হয়েই বললেন, ‘ওর বহুদিনের লালিত স্বপ্ন পূরণ হয়েছে। তাকে আজ সারা বাংলাদেশ চিনেছে। বাবা-মা হিসেবে আমাদের জন্য এটি অবশ্যই গর্বের। তবে আমরা চাই, এবার সে চিকিৎসক হিসেবে এগিয়ে যাক। তার ইচ্ছে তো পূরণ হলো, এবার আমাদের ইচ্ছেটা পূরণ করুক।
 
মা-বাবার ছেলের এমন ‘নিশ্চিন্ত’ জীবন চাওয়া যে একটাই কারণে, সেটি কি আর বলতে হয়! এভারেস্ট ছোঁয়ার গৌরব অর্জনের প্রতিটি পদক্ষেপে যে কাঁটা বেছানো। সেই কাঁটার নাম কখনো তুষারঝড়, কখনোবা তুষারক্ষত! প্রতিবছরই অজয়কে জয় করার এই রোমাঞ্চে তাই কেউ কেউ তার লক্ষ্যে পৌঁছায়, কেউ বা মিশে যান বরফের দুনিয়ায়।

মা-বাবার কথা শুনে বাবরের মন কি এবার বাধা পড়বে নির্ভাবনার চিকিৎসক-জীবনে, নাকি আবারো মায়ের টেনশন বাড়িয়ে আকুলিবিকুলি করবে যেতে-দূর পাহাড়ের চূড়ায়!